ময়নামতি নয় ‘কুমিল্লা’ নামে বিভাগ চাই

শাহাজাদা এমরান, কুমিল্লা :
কুমিল্লা বিভাগের নাম ‘ময়নামতি’ হবে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। মন্ত্রী বলেন, এখন থেকে আর কোনো জেলার নামে বিভাগের নামকরণ করা হবে না। নতুন বিভাগের নাম ভিন্ন নামে হবে। মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এমন আলোচনা হয়েছে। সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানানোর সঙ্গে সঙ্গে মিছিলে মিছিলে উত্তাল হয়ে ওঠে কুমিল্লা। গতকাল বুধবার দ্বিতীয় দিনের মতো কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড়সহ নগরীর প্রায় প্রতিটি মহল্লায় মিছিল মানববন্ধন হয়েছে। সবার একটাই দাবি, ময়নামতি নয় কুমিল্লা নামে বিভাগ করতে হবে।
বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন কুমিল্লার সুশীল সমাজও। স্বাধীনতা-উত্তর কুমিল্লার প্রথম প্রশাসক ও ভাষা সৈনিক অ্যাড. আহম্মদ আলী বলেন, আধুনিক সভ্যতার রূপ হলো কুমিল্লা। সমৃদ্ধ কুমিল্লা জেলার ইতিহাস-ঐতিহ্যর শিকড় অনেক গভীরে। কুমিল্লাকে বাদ দিয়ে ময়নামতি নামে বিভাগের নামকরণের যৌক্তিকতা নেই। দেশের অনেক আন্দোলন সংগ্রামের উৎস কুমিল্লা জেলা।
কুমিল্লা সদর আসনের এমপি আ. ক. ম বাহাউদ্দিন বাহার মুঠোফোনে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ার বলেন, এটা কাম্য নয়। কুমিল্লাকে বাদ দিয়ে ময়নামতি নামে বিভাগ করার প্রস্তাবে উত্তাল হয়ে উঠেছে কুমিল্লাবাসী- এমন সংবাদে তিনি বলেন, এমন প্রতিবাদমুখর হওয়ার বিষয়টি খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। কুমিল্লা বিভাগ কুমিল্লাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি। আমি সংসদে আছি। পরে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলব।
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিন উর রশীদ ইয়াছিন বলেন, গতকাল এনইসি সভা শেষে ময়নামতি নামে বিভাগ হবে বলে যে প্রস্তাব করা হয়েছে, এমন সংবাদে আমি মর্মাহত। যদি কুমিল্লাকে বাদ দিয়ে ময়নামতি নামে বিভাগের নামকরণ করা হয় তাহলে এটা কুমিল্লাবাসীর সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ করা হবে। আমরা কুমিল্লাবাসী আলাদা রাজনৈতিক মতাদর্শে আলাদা ধর্মীয় অনুশাসনে চললেও জেলার বৃহত্তর স্বার্থে সব সময় ঐক্যবদ্ধ ছিলাম, আছি ও থাকব। কুমিল্লা বিভাগ আমাদেরও প্রাণের দাবি। কুমিল্লা নামেই কুমিল্লা বিভাগ বাস্তবায়ন চাই, অন্য নামে নয়। কুমিল্লা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক ও কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ ওমর ফারুক বলেন, কুমিল্লাকে বাদ দিয়ে অন্য নামে বিভাগ করার প্রস্তাবনার বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে স্ট্যাটাস দেন। কুমিল্লা বিভাগের নাম, কুমিল্লা বিভাগ হতে হবে। অন্য কোনো নাম আমরা কুমিল্লাবাসী গ্রহণ করব না এবং বরদাশত করব না। এ ব্যাপারে কুচক্রী ও ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে কুমিল্লাবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়াবার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। কুমিল্লার বিরুদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করছে তাদের চিহ্নিত করুন, ঘৃণা করুন এবং প্রতিহত করুন।
বিএমএ কুমিল্লার সাবেক সভাপতি ডা. ইকবাল আনোয়ার বলেন, ইতিহাস সাক্ষী অতীতে দেশে যত বিভাগ গঠন করা হয়েছে মানে যে জেলার নামে বিভাগ গঠন করা হয়েছে ওই জেলার কোনো বিশেষ নামকে প্রাধান্য দেয়া হয়নি। যদি প্রাধান্য দেয়া হতো তাহলে সিলেট বিভাগের নামকরণ হতো শাহজালাল বিভাগ। কুমিল্লা বিভাগের জন্য এতদিন ধরে যে আন্দোলন-সংগ্রাম করা হয়েছে, কেন করা হলো? এমন কোন কারণ আছে যে কুমিল্লাকে বাদ দিয়ে বিভাগের অন্য নামে নামকরণ করতে হবে। যদি অন্য নামে বিভাগ হয় তাহলে বিভাগীয় শহর কোনটি হবে। আসলে এমন প্রস্তাবনা কেন করা হলো আমার বোধগম্য নয়। আমিও কুমিল্লাবাসীর মতো মর্মাহত।
কুমিল্লা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাকীন রাব্বী বলেন, কুমিল্লাবাসী হিসেবে আমি তীব্র অপমানবোধ করব যদি কুমিল্লা নাম বাদ দিয়ে অন্য নামে বিভাগ ঘোষণা করা হয়।
নারী নেত্রী ও কুমিল্লা সাংস্কৃতিক জোটের আহ্বায়ক পাপড়ি বসু বলেন, আর কতভাবে কুমিল্লাকে বঞ্চিত করা হবে। যখন শুনলাম ময়নামতি হিসেবে বিভাগের নামকরণ করা হবে তখন মনে হলো মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ল। আমি একজন নারী নেত্রী হিসেবে একজন সংস্কৃতিকর্মী হিসেবে সর্বোপরি একজন কুমিল্লাবাসী হিসেবে এমন প্রস্তাবের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই।
সচেতন নাগরিক কমিটির কুমিল্লার সাবেক আহ্বায়ক বদরুল হুদা জেনু জানান, আমাদের কুমিল্লার রাজনীতিবিদদের ঐক্য না থাকার সুযোগে হয়তো এটা করা হচ্ছে। কুমিল্লার ইতিহাসকে আড়াল করতে ও নিজেদের স্বার্থে একটি কুচক্রী মহল চেষ্টা চালাচ্ছে। ওই মহলটিই ময়নামতি নামে বিভাগ সমর্থন করছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের যেখানে বিভাগ করা হয়েছে, তা জেলার নামেই হয়েছে, এখন কুমিল্লা বিভাগ নিয়ে কারো ষড়যন্ত্র রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখার দাবি জানান তিনি।
কুমিল্লার ব্যবসায়ী নেতা শাহ মোহাম্মদ আলমগীর খান বলেন, কুমিল্লা অত্যন্ত প্রসিদ্ধ একটি প্রাচীনতম জেলা। তাই বিভাগের নাম কুমিল্লা বিভাগ না হয়ে অন্য কোনো নাম হলে সচেতন কুমিল্লাবাসী তা কোনোভাবেই মেনে নেবে না। আমরা চাই দেশের অন্যান্য বিভাগের মতো এ বিভাগের নাম হবে, অন্যথায় ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়বে।

মানবকণ্ঠ/এসএস

Leave a Reply

Your email address will not be published.