হাতিরঝিলে নকশাবহির্ভূত স্থাপনা ভেঙে ফেলতে হাইকোর্টের রুল

হাতিরঝিলে নকশাবহির্ভূত স্থাপনা ভেঙে ফেলতে হাইকোর্টের রুল

হাতিরঝিল-বেগুণবাড়ি প্রকল্পের লে-আউট প্ল্যান (নকশা) বহির্ভূত রেস্টুরেন্টসহ বিভিন্ন স্থাপনা ভেঙে ফেলার নির্দেশ কেন দেয়া হবে না তা জানতে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ভবিষ্যতে যাতে লে-আউট প্ল্যান বহির্ভূত কোন স্থাপনা আর না হয় সে ব্যবস্থা নিতে বিবাদীদের প্রতি কেন আদেশ দেয়া হবে না রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

বুধবার বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রুল জারি করেন।

রাজউকের চেয়ারম্যান, হাতিরঝিল-বেগুনবাড়ি প্রকল্পের পরিচালকসহ সংশ্লিস্ট সাতজন বিবাদীকে দুইসপ্তাহের মধ্যে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এর আগে গত বছরের ১০ সেপ্টেম্বর এইচআরপিবি’র এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়েহাইকোর্ট হাতিরঝিল-বেগুনবাড়ি প্রকল্পের নকশাবহির্ভূত স্থাপনা ৭ দিনেরমধ্যে অপসারণ করার নির্দেশ দেন।

একইসঙ্গে নকশা বহির্ভূত স্থাপনা অপসারণেবিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা ও ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতেরুল জারি করেন। পরে হাইকোর্টের ওই আদেশ স্থগিত চেয়ে হাতিরঝিলেরনকশা বহির্ভূত কিছু প্রতিষ্ঠানের মালিক কর্তৃপক্ষ আপিল বিভাগে আবেদনজানায়। ওই আবেদনের শুনানি করে আপিল বিভাগ গত বছরের ১৪ অক্টোবর স্থাপনা অপসারণের আদেশের ওপর স্থিতিবস্থা (স্ট্যাটাসকো) জারি করেন। একইসঙ্গে হাইকোর্টের জারি করা রুল দু’মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করার আদেশ দেন।

এইচআরপিবি’র আইনজীবী মনজিল মোরসেদ জানান, আপিল বিভাগ নকশাবহির্ভূতস্থাপনা উচ্ছেদের ওপর স্থিতিবস্থা জারি করে রুল নিষ্পত্তির আদেশ দিয়েছেন। এখন রুল নিষ্পত্তি করা হবে। কিন্তু রুলে অবৈধ স্থাপনা ভেঙে ফেলার বিষয়টি ছিলো না। তাই এক সম্পূরক আবেদনে হাতিরঝিলের নকশা বহির্ভূত স্থাপনা ভেঙে ফেলার নির্দেশ চাওয়া হয়েছে। হাইকোর্ট শুনানি নিয়ে রুল জারি করেছেন।

মানবকণ্ঠ/এসএস