সড়ক দুর্ঘটনা সবচেয়ে বড় দুর্ভাবনা: সেতুমন্ত্রী

সড়ক দুর্ঘটনা সবচেয়ে বড় দুর্ভাবনা: সেতুমন্ত্রী

মহাসড়কে একের পর এক দুর্ঘটনাকে এখন ‘সবচেয়ে বড় দুর্ভাবনার বিষয়’ হিসেবে দেখছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সমসাময়িক বিষয় নিয়ে মঙ্গলবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমি নিজেই বলেছি সড়কে শৃঙ্খলা আসেনি। অবকাঠামোগত প্রকল্পে যত অগ্রগতি, সেই তুলনায় সড়ক ও পরিবহনে শৃঙ্খলাটা অতটা হয়নি, যার জন্য অ্যাক্সিডেন্ট বা যানজট রয়েছে।’

গত দশ বছরে সড়কের শৃঙ্খলা ফেরানোর চেষ্টায় যেখানে খুব বেশি সাফল্য আসেনি, সেখানে সরকার এবার কী করার কথা ভাবছে? মন্ত্রী জানান, শিগগিরই সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিলের সভা ডাকা হবে। কমিটি সাজানো হবে নতুন করে। ‘নতুনভাবে প্রোগ্রাম নেয়ার চিন্তাভাবনা করছি। নিরাপত্তা কাউন্সিলের সভায় সড়ক বিশেষজ্ঞদের নিয়ে কমিটি করে দেব। তাদের কাছ থেকে অল্পদিনের ব্যবধানে প্রতিবেদন চাইব, পরে যদি টাস্কফোর্স করতে হয় তাও করব।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটার (সড়ক দুর্ঘটনা) লাগাম টেনে ধরতে হবে, রাশ টেনে ধরতে হবে। জাতীয় স্বার্থে এবং জাতির দুর্ভাবনা অবসানের স্বার্থে। কারণ সড়ক দুর্ঘটনা এখন আমাদের সবচেয়ে বড় দুর্ভাবনা, এটা অস্বীকার করে লাভ নেই। ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৮ সালে সারাদেশে ৩ হাজার ১০৩টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় ৪ হাজার ৪৩৯ জনের প্রাণ গেছে, আহত হয়েছেন ৭ হাজার ৪২৫ জন।

জানুয়ারির শেষে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘বেশিরভাগ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে বড় বড় শহর ও হাইওয়েতে। ছোট ছোট অবৈধ যানবাহন যেমন, ভ্যান, রিকশা, নসিমন, অটোরিকশা এর জন্য দায়ী। ‘আইন অমান্য করে ধীরগতির বাহন মহাসড়কে এখনো চলাচল করে যা দূরপাল্লার বড় গাড়িগুলোর চলাচলে বিঘ্ন ঘটায়। অবৈধ যানবাহন চলাচলে স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের প্রচ্ছন্ন সহযোগিতাও আছে।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও ছোট যানবাহনের বিষয়ে ইলিয়াস কাঞ্চনের পর্যবেক্ষণের সঙ্গে একমত। তিনি বলেন, ‘বড় গাড়ির সঙ্গে সিএনজি বা ইজি বাইকের যদি সংঘাত হয় আর ইজি বাইকে যদি ১০ জন থাকে, ১০ জনই মারা যায়। বড় বড় গাড়িতে সংঘাত হলে আহত হয়, এ রকম নিহত হয় না। ছোট ছোট যান নিয়ন্ত্রণ করা আমাদের প্রথম দায়িত্ব।

মন্ত্রী স্বীকার করেন, ইজিবাইক-নসিমন-করিমনের সঙ্গে ‘অনেকে’ জড়িত, এখানে ‘রাজনৈতিক বিষয়ও’ আছে। তবে মানুষের জীবন বাঁচাতে হবে আগে। ‘এটা আমার এখানে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব, যেটা সম্ভব সেটা আমি কেন করব না? যেটা সম্ভব সেটা কেন করা যাবে না? করতে হবে।’ উন্নয়ন কাজের জন্য বিভিন্ন সড়ক ও মহাসড়কে যানজট হওয়ার কথা স্বীকার করে কাদের বলেন, কাজগুলো শেষ হলে একটা সময় যানজট পরিস্থিতির উন্নতি হবে।

মানবকণ্ঠ/এসএস