সড়কে মৃত্যু মিছিল থামছে না

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর মিছিল থামছেই না। বুধবারও দেশে তিন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ৫ জন। আহত হয়েছেন অন্তত ১৪ জন। এর মধ্যে সিরাজগঞ্জ-সয়দাবাদ বাইপাস সড়কে হানিফ পরিবহনের দু’টি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নারীসহ তিন যাত্রী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দেশে সাত জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী-সন্তানসহ নিহত হয়েছেন ১০ জন। এ বিষয়ে মানবকণ্ঠের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে বিস্তারিত পড়ুন—

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জ-সয়দাবাদ বাইপাস সড়কে হানিফ পরিবহনের দু’টি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে এক নারীসহ তিন যাত্রী নিহত ও ১৫ জন আহত হয়েছেন। বুধবার বিকেল বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিমপাড় মুলিবাড়ি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। হতাহতদের পরিচয় জানা যায়নি।

সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল হামিদ ও বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ওসি সৈয়দ শহীদ আলম জানান, গতকাল ঢাকা থেকে হানিফ পরিবহনের একটি বাস উত্তরবঙ্গের দিকে যাচ্ছিল। বাসটি সয়দাবাদ এলাকায় পৌঁছলে একই কোম্পানির (হানিফ পরিবহন) ঢাকাগামী অপর একটি বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ বাধে। এতে ঘটনাস্থলে দুই যাত্রী নিহত ও অন্তত ১৫ যাত্রী আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।

সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে জরুরি বিভাগের চিকিত্সক ডা. ফয়সাল আহমেদ বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় এক নারীসহ তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে চিকিত্সা দেয়া হচ্ছে।

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরায় রাস্তা পার হতে গিয়ে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে আবদুস সালাম মণ্ডল (৮৩) নামে এক মসজিদের মোয়াজ্জিম নিহত হয়েছেন। বুধবার সকালে মাগুরা শহরের পারনান্দুয়ালি ৩নং ব্রিজ এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

সদর থানার এসআই লিটন জানায়, মাগুরা সদর উপজেলার লস্কারপুর গ্রামের লিয়াকত মণ্ডলের ছেলে আবদুস সালাম মণ্ডল নিজ এলাকায় একটি মসজিদে মোয়াজ্জিম হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সকাল ৮টার দিকে অশীতিপর এই বৃদ্ধ মাগুরায় একটি ইটভাটায় কর্মরত ছেলের সঙ্গে দেখা করে নিজ গ্রামে ফিরছিলেন। পথে মাগুরা শহরের পারনান্দুয়ালি ৩নং ব্রিজ এলাকায় লাঠিতে ভর করে তিনি রাস্তা পার হচ্ছিলেন। এমন সময় ঢাকা থেকে মেহেরপুরগামী ইউনিক পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস পেছন থেকে চাপা দিলে তিনি গুরুতর আহত হন। ঘটনার পর এলাকাবাসী ওই বৃদ্ধকে মাগুরা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়। ঘাতক বাসটিকে আটক করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে গেছে।

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে সড়ক দুর্ঘটনায় মাহফুজা বেগম ওরফে মারুফা (২৬) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এ সময় নসিমন চালকসহ ওই নারীর শিশু পুত্র তানহা (৭) গুরুতর আহত হয়েছে। বুধবার দুপুরে জেলার সদর উপজেলার চেচানিয়াকান্দি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত মাহফুজা বেগম বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার সাতলা গ্রামের শহিদুল হাওলাদারে স্ত্রী। গুরুতর আহত তানহাকে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার চেচানিয়াকান্দি এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাস নসিমনটিকে ধাক্কা দেয়। এতে নসিমনটির সামনের চাকা গাড়ি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ সময় মাহফুজা বেগম নসিমন থেকে ছিটকে পড়ে বাসের চাকায় নিচে পিষ্ট হন এবং তার ছেলে তানহা রাস্তার পাশে ছিটকে পড়ে গুরুতর আহন হয়। নসিমনটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে থাকা একটি গাছের সাথে আটকে থাকে। এতে নসিমন চালকও আহত হন। ধারণা করা নিহত মাহফুজা বরিশালের উজিরপুর উপজেলার সাতলা থেকে নসিমনে করে গোপালগঞ্জে আসছিলেন।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ