স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রীসহ দু’জনের মৃত্যুদণ্ড

বাগেরহাট প্রতিনিধি :
বাগেরহাটে পরকিয়ায় জড়িয়ে আল আমিন শেখ নামে এক ব্যক্তিকে হত্যার দায়ে স্ত্রীসহ দু’জনকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল সোমবার দুপুরে বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মো. জাকারিয়া হোসেন আসামিদের উপস্থিতিতে এ দণ্ডাদেশ দেন। পাশাপাশি প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশও দেয়া হয়। একই মামলায় ভিকটিমের লাশ গুমের ঘটনায় অপর আদেশে তাদের দু’জনকে ৭ বছর কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা বা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেন বিচারক।
দণ্ড প্রাপ্তরা হলেন- আল আমিন শেখের স্ত্রী মোরেলগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ কুমারিয়াজোলা গ্রামের ফাতেমা বেগম (৪৬) এবং একই গ্রামের মিরাজ উদ্দিন শেখের ছেলে ও ফাতেমা বেগমের প্রেমিক শাহজাহান শেখ (৬০)। মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট লুৎফর রহমান ও সীতা রানী দেবনাথ। আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট কুহেলী পারভীন।
মামলার নথির বরাত দিয়ে অ্যাডভোকেট সীতা রাণী দেবনাথ বলেন, ২০১৫ সালের ১৬ মার্চ রাতে মোরেলগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ কুমারিয়াজোলা গ্রামের নিজ বাড়িতে ফাতেমা ও প্রেমিক শাহজাহান শেখ তার স্বামী আল আমিনকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে রান্না ঘরের পাশে মাটির নিচে লাশ পুঁতে রাখে। তাকে খুঁজে না পেয়ে ছেলে মোহাম্মাদ আলী শেখ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে পুলিশ আল আমিনের মোবাইল ট্রাকিং করে স্ত্রী ফাতেমা বেগমকে গ্রেফতার করে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ঘটনার ৩ মাস পর একই বছরের ১৭ জুন রান্না ঘরের পাশে মাটিতে পুতে রাখার আল আমিনের মরদেহের ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করে পুলিশ।
পরের দিন নিহত আল আমিনের ভগ্নিপতি মো. মোবারক আকন বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে মোরেলগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। পরে ২০১৬ সালের ১০ জুন সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক মো. সাইফুল ইসলাম ৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। সাক্ষী প্রমাণ শেষে আদালত একজনকে খালাস ও দু’জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন।