স্কুলছাত্রীর গালে চুমু দিয়ে শ্রীঘরে তিন যুবক

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে এক স্কুলছাত্রীকে প্রকাশ্যে চুমু দেয়ার অপরাধে তিন যুবককে শ্রীঘরে পাঠিয়েছে আদালত। এর আগে গত বুধবার রাতে দশম শ্রেণি পড়ুয়া ওই স্কুলছাত্রীকে জোরপূর্বক চুমু দেয়ায় ঘটনায় তিন যুবককে গ্রেফতার করে নালিতাবাড়ী থানা পুলিশ। পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে অভিযুক্ত যুবকদের আদালতে আদালতে হাজির করা হলে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার সন্ন্যাসীভিটা উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণি পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে প্রায়ই রাস্তায় উত্যক্ত করত নল জোরা গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে মেহেদী হাসান (২০)। কিন্তু ওই ছাত্রী এতে রাজি না হয়ে তার পরিবারকে জানায়। এরপর থেকে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে প্রায়ই তার ভাই আবু আনসারি ছোট বোনকে এগিয়ে দিয়ে যেত। কিছুদিন আগে বাড়ি থেকে বিদ্যালয়ে আসার পথে বখাটে মেহেদী ও তার বন্ধুরা ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে তার ভাই আবু আনসারিকে আসতে দেখে মারধর করে। পরে এ নিয়ে গ্রাম্য সালিশে বিষয়টি সুরাহা করা হয়।

এদিকে ৬ জানুয়ারি সোমবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ওই শিক্ষার্থী বিদ্যালয় থেকে বাড়ি যাচ্ছিল। পথিমধ্যে চেল্লাখালী নদী তীরবর্তী রাস্তায় মেহেদী তার বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে পথ রোধ করে এবং প্রকাশ্যে গালে চুমু দিয়ে বসে। বিষয়টি জানাজানি হলে ভুক্তভোগীর পিতা বাদী হয়ে ৯ জানুয়ারি নালিতাবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওইদিন রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত মেহেদী হাসান, বন্ধু দক্ষিণ রানীগাঁও গ্রামের মুছা মিয়া (১৯) ও অপর বন্ধু কৃষ্ণপট্টি গ্রামের তুষারকে (২০) গ্রেফতার করে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নালিতাবাড়ী থানা ওসি আবুল খায়ের বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত তিন আসামিকে আদালত কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া এ ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সন্নাসীভিটা উচ্চ বিদ্যালয়সহ আশপাশের বিদ্যালয়গুলোর ছাত্রীদের নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় এ ধরনের ঘটনার সম্মুখীন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তারা (পুলিশের ওসি) নাম্বারে (০১৭১৩৩৭৩৫২৫ অথবা ৯৯৯) অবহিত করতে বলা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ