অবশেষে খাশোগিকে হত্যার কথা স্বীকার সৌদির

সৌদি দূতাবাসের একটি মারামারির ঘটনায় নিহত হয়েছেন নিখোঁজ থাকা সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি। নিখোঁজ হয়ে যাওয়া সৌদি সরকার বিরোধী সাংবাদিকের বিষয়ে এমন তথ্য দিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করলো সৌদির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন। প্রাথমিক তদন্তের বরাত দিয়ে করা ওই রিপোর্টে আরো বলা হয়, এ ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে সৌদি আরবের উপ গোয়েন্দা প্রধান আহমাদ আল-আসিরি এবং যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের সিনিয়র সহকারী সৌদ আল-কাহতানিকে বরখাস্ত করা হয়েছে । খবর বিবিসির।

এদিকে নিউইয়র্ক টাইমসের একটি প্রতিবেদনে বলা হয় জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকায় এ পর্যন্ত ১৮ জনকে গ্রেফতার করেছে এবং ৫ জন কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে ।

সৌদি রাষ্ট্রীয় প্রতিবেদন প্রকাশের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রতিক্রিয়ায় বলেন, যা ঘটেছে তা গ্রহণযোগ্য নয় কিন্তু সৌদি আরব আমাদের খুব ভালো মিত্র দেশ। একটি গোল টেবিল বৈঠকে অংশ নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতারের ঘটনা খাশোগি হত্যার সত্য প্রকাশে একটি প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ ছিল। এর জন্য তিনি সৌদি প্রশাসনের প্রশংসা করেন। এ সময় সৌদির ওপর নিষেধাজ্ঞার কথা উঠালে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মার্কিন অর্থনীতির ওপর ওই নিষেধাজ্ঞার প্রভাব নিয়ে আলোচনা করেন।

উল্লেখ্য, সৌদি আরব ও দেশটির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কঠোর সমালোচক জামাল খাশোগি গত ২ অক্টোবর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিতে তুরস্কের ইস্তানবুল শহরের সৌদি দূতাবাসে প্রবেশের পর আর বের হননি। সৌদি আরব অবশ্য বলছে, খাশোগি দূতাবাস ভবন থেকে বের হয়ে গেছেন। ওই সময় তুরস্কের দাবি, তাদের তদন্তকারীদের হাতে নিশ্চিত প্রমাণ রয়েছে কনস্যুলেট ভবনের ভেতরে খাশোগিকে হত্যা করা হয়েছে। ২ অক্টোবর তুরস্কে আসা ১৫ সদস্যের একটি সৌদি দল এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ আঙ্কারার।

মানবকণ্ঠ/এআর