সোশ্যাল মিডিয়া থেকে…

আমি মনে করি এক সময়ে সব বাণিজ্যকে ডিজিটাল বাণিজ্য বলা হবে। সরকার বলতে ডিজিটাল সরকার বোঝানো হবে। শিক্ষা বলতেও ডিজিটাল শিক্ষা বোঝাবে। বস্তুত আমাদের জীবনধারাই হবে ডিজিটাল। তেমন সময়ে বাজেট মানেই হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের বাজেট বা জ্ঞানভিত্তিক সমাজের বাজেট।
-মোস্তাফা জব্বার
প্রযুক্তিবিদ

যৌবনে এক শোকসভায় শওকত ওসমানের বলা একটি গল্পের কথা মনে পড়ছে। সৌভাগ্য আমার সে অনুষ্ঠানে আমি ছিলাম অতিথি বক্তা। বয়সী শওকত ওসমান তখন একনাগাড়ে বসে কথা বলতে পারেন না। দাঁড়িয়ে মাইকে বলতে বলতে সরে যান, আবার ফিরে আসেন। বলছিলেন তার যৌবনে একদিন বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে দেখেন দলে দলে কাকা, জ্যাঠা, দাদারা পালিয়ে যাচ্ছে। তিনি পিতাকে প্রশ্ন করেছিলেন, এটা কোন ধরনের বর্বরতা? সময় কি এর জবাব দেবে না? হাসতে হাসতে বললেন, বেশিদিন নয় আবার দলে দলে চাচা চাচি ভাইয়ের দল পালাচ্ছিল একাত্তরে। তাও একই গন্তব্যে। সময়ের এই বিচার জেনেও সমতলের সেটেলার পাহাড়িদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে পালাতে বাধ্য করছে। এই আগুন নেভায় এমন কোনো ডিজিটাল ফায়ার সার্ভিস পয়দা হয়নি আজো। জাগো মানুষ জাগো।
-অজয় দাশগুপ্ত, প্রবাসী সাংবাদিক
দেশের প্রতিটি উপজেলায় বিভিন্ন সরকারের সময় হঠাৎ গজিয়ে ওঠা পাহাড় সমান ধনভাণ্ডারের মালিকদের অর্থের উৎসমূলে হাত দিলেই দেশের আইনশৃঙ্খলার অভাবনীয় উন্নয়ন হবে। দেশে স্বচ্ছ রাজনৈতিক প্রবাহের সূচনা হবে। দুর্নীতির প্রবণতা হ্রাস পাবে। আলোকিত জাতি গঠনের পথ চওড়া হবে। রাষ্ট্র, সরকার এবং আইনের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে।
-পাঞ্জাব বিশ্বাস
সাবেক সংসদ সদস্য

সবাই দেখি অর্থমন্ত্রীর এই বক্তব্য নিয়ে পড়েছেন- লুটপাট করা ‘৪ হাজার কোটি টাকা কিছু না।’ কষ্টার্জিত ১ লাখ টাকা, ‘যথেষ্ট টাকা।’ আচ্ছা আপনার বিবেক কী বলে? একবার সাচ্চা দিলে ভেবে দেখুন তো, লুটেরার সংখ্যা বেশি হলে চার হাজার কোটি কি আদৌ তেমন বেশি টাকা?
-মঈনুল আহসান সাবের
কথাসাহিত্যিক

হেফাজতের কর্মীরা সবসময় চিলের পেছনে দৌড়ায়। ব্লগার কারা, এটা না জেনেই ২০১৩ সালে বড় হুজুরের ডাকে ঢাকা দখল করতে এসেছিল। হেফাজতের নেতারা চতুর। তারা ‘চিলে কান নিয়েছে’ বলে কর্মীদের লেলিয়ে দেন। যেমন এবার টার্গেট করা হয়েছে মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামালকে। হেফাজতে ইসলাম হেফাজতের কথা বলে। কিন্তু দিনের পর দিন মিথ্যা বলতে তাদের বাধে না। সুলতানা কামাল যা বলেননি, তার মুখে তাই বসিয়ে তাকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতার, আর রাস্তায় পেলে হাড্ডি-গোস্ত এক করার হুমকি দেয়া হচ্ছে। মজাটা হলো, সুলতানা কামাল বিপদে পড়েছেন ভেবে, আরো অনেকেই মজা নিচ্ছেন। হয় চুপ করে আছেন, নইলে তারাও হেফাজতের সুরে সুর মেলাচ্ছে। কারো কারো ভাবটা এমন, সুন্দরবন নিয়ে অনেক তো আমাদের বিরুদ্ধে বলেছেন, এবার বুঝুন ঠ্যালা। প্রিয় ভাইয়েরা, আজ হয়তো হেফাজত আপনাদের পাশে আছে, কাল থাকবে না। যতই দুধ কলা দিন, এই কাল সাপ আপনাকে ছোবল দেবেই। বরং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রশ্নে সুলতানা কামালরাই আপনাদের পাশে থাকবে। হেফাজতসহ সব অপশক্তিকে রুখে দাঁড়াতে হবে।
-প্রভাষ আমীন
সাংবাদিক

বিএনপি কি হরিলুটের মাল নাকি রাজনৈতিক দল? সংবাদ মাধ্যমে বিএনপির ৩০০ সংসদীয় আসনে ৯০০ জন দলীয় প্রার্থীর তালিকা দেখলাম। কিন্তু এই তালিকার সাপ্লাইয়ার কারা! নেত্রীর গুলশান অফিস নাকি অন্য কোনো তথ্য ভাণ্ডার! যা গো নুন আনতে পান্তা ফুরায়, চোর, চামার, ছেচ্ছর, চামবাজ, চাঁদাবাজ, চরিত্রহীন, দালাল, ফড়িয়া কে নাই! কিংবা কত রঙের সাপ্লাইয়ার …ইয়াবা কিংবা ফেনসিডিল ব্যবসায়ী, সেবনকারী, অবৈধ ব্যবসায়ী কিংবা কালো টাকার মালিক, ব্যাংক কিংবা শেয়ার মার্কেট লুটের টাকা কে নাই। রাজনীতি এখন লুটের মাল, দাম দর কিংবা নিলাম শুরু হয়ে গেছে। চলছে এবং চলবে। বিএনপি, আওয়ামী লীগ এরা যেন মুদ্রার এপিঠ আর ওপিঠ। লুটপাটে কেউ কারো থেকে কম যায় না। আওয়ামী লীগের এক্সট্রা কারিশমা হচ্ছে এরা মানুষ হত্যায় পারঙ্গম, মিথ্যার রাজা কিংবা ভোট ডাকাতি থেকে শুরু করে ব্যাক ডাকাতি, এবং সর্বশেষ বিদ্যুৎ, গ্যাস, ওয়াশা, ট্যাক্স, কিংবা ভেটের নাম করে প্রান্তিক জনগণের পকেট কাটার ফর্মূলাতেও শতভাগ সফল। মহান স্বাধীনতার ঘোষক, এক বিজয়ী বীর, সেক্টর কমান্ডার, বীরোত্তম, জাতীয়তাবাদী, দেশপ্রেমিক নেতা প্রেসিডেন্ট জিয়া এ দেশের জনগণের জন্য একটি দল বানিয়ে ছিলেন! উনি সব সময় এ কথাটি বলতেন জনগণ যদি একটি দল হয় আমি সেই দলের একজন হতে চাই। প্রাণপ্রিয় নেতার ৩৬তম শাহাদতবার্ষিকীতে জিয়াউর রহমানের নীতি আদর্শ কিংবা দেশপ্রেম কোনো কিছুই আর অবশিষ্ট নেই! আজ সবকিছুই অতীত। তারপরও এদেশের লক্ষ কোটি জনতা প্রিয়, দেশপ্রেমিক এই মানুষটাকে প্রাণ দিয়ে ভালোবাসে। বিএনপিকে নিয়ে আগামীতে আবারো স্বপ্ন দেখে… তার রক্তের উত্তরসূরি, এক প্রথাগত উত্তরাধিকার জনাব তারেক রহমান আপনি পারবেন তো? আপনি তো সবই জানেন, এবং এখন আপনি অনেক বেশি পরিণত, দায়িত্বশীল। জিয়া মানে তো বাংলাদেশ কিংবা প্রিয় স্বাধীনতা, আমাদের অস্তিত্বের শিকর। আপনাকে যে পারতেই হবে! সবার আগে আপনাকে ফর্মালিন মুক্ত হতে হবে। শুরুর আগেই দালাল, চাটুকার কিংবা চরিত্রহীনরা যেন আপনাকে নিঃশেষ করে না ফেলে! পেছনে ফিরে যাওয়া কিংবা আত্মসমর্পণের কোনোই সুযোগ নেই। আল্লাহ ভরসা! নাকি আরো একটি শামে কারবালা।
-সানাউল হক নিরু, সাবেক ছাত্রনেতা

লন্ডন আক্রমণের দায় নিল আইএস। ভাবখানা এমন, কি অসাধারণ সওয়াবের কাজ করেছে! আমি জানি এখনই অনেকে বলা শুরু করবে, আইএস দিয়ে ইসলামকে বিচার করা ঠিক না তা ঠিক না। কিন্তু তাদের ভেতরে ভেতরে কি যে আনন্দ তাদের প্রোফাইল ঘাঁটুন দেখবেন কত ঘৃণা অন্যধর্মী আর অসাম্প্রদায়িক মানুষের প্রতি …. প্রগতির প্রতি….মানবিকতার প্রতি।
-সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা
পরিচালক বার্তা, চ্যানেল ৭১

জলবায়ু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নিজেকে প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত জলবায়ু চুক্তি, যা কপ-২১ নামে পরিচিত, ভবিষ্যতে একটি বড় প্রশ্নের মাঝে ফেলে দিয়েছে অথচ গেল বছর ২২ এপ্রিল জাতিসংঘের সদর দফতরে জলবায়ুসংক্রান্ত কপ-২১ চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। ১৭০টির মতো দেশ এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করে তা আইনে পরিণত করেছিল।
-তারেক শামসুর রেহমান, অধ্যাপক

মানবকণ্ঠ/আরএস