সেই নোয়াখালীতে ফের গৃহবধূকে গণধর্ষণ

ভোটের দিন রাতে গৃহবধূকে গণধর্ষণ নিয়ে সারাদেশে আলোচনার ঝড় শেষ না হতে আবারো নোয়াখালীতেই গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে সংঘবদ্ধ চক্রের বিরুদ্ধে। শুক্রবার রাতে নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায় ঘরে সিঁদ কেটে গৃহবধূকে (২৭) গণধর্ষণ করে তারা। ঘটনায় জাকির হোসেন জহির (৪০) নামের স্থানীয় এক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার দুপুর ১টার দিকে ভিকটিমকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আটক জাকির হোসেন জহির উপজেলার নবগ্রামের এনামুল হকের ছেলে। জহিরের স্থানীয় জিয়া নগর এলাকায় একটি মুদি দোকান আছে।

ভিকটিমের বরাত দিয়ে তার মামা জানান, রাত দেড়টার দিকে জাকির হোসেন জহিরসহ ৭ জন তার ভাগিনার (ভিকটিমের স্বামী) ঘরের সিঁধ কেটে ভিতরে প্রবেশ করে। এ সময় তারা গৃহবধূকে বলে তোর কাছে ৬০ হাজার টাকা আছে সেগুলো আমাদের দিয়ে দে। এ নিয়ে ভিকটিমের সঙ্গে তাদের বাকবিতর্ক হয়। এ সময় তারা ঘরের লাইট বন্ধ করে ভিকটিমের মা (৬৫), ভিকটিমের এক ছেলে ও দুই মেয়েকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তাদের মধ্যে তিনজন ভিকটিমকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে রাত আনুমানিক ৩টার দিকে ধর্ষকরা ঘর থেকে বের হয়ে যায়। এ সময় তারা ঘরে থাকা নগদ টাকা, ২ ভরি স্বর্ণ, মোবাইল ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

এদিকে এই ঘটনার পর কয়েকজন দুর্বৃত্ত পার্শ্ববর্তী নূর নবীর ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে ডুকে ঘরে থাকা লোকজনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এক ভরি স্বর্ণ ও নগদ ৩৪ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

কবিরহাট থানার ওসি মির্জা মোহাম্মদ হাছান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ভিকটিমকে উদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ