সাতক্ষীরা ও ময়মনসিংহে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৩

মানবকণ্ঠ ডেস্ক:
দেশব্যাপী মাদকবিরোধী অভিযানের মধ্যে সাতক্ষীরা ও ময়মনসিংহে আরো তিনজন বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে সাতক্ষীরা সদরে মাদকসহ গ্রেফতার হওয়ার পর পুলিশের অভিযানের মধ্যে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন ইউনিয়ন পর্যায়ের এক যুবলীগ নেতাসহ দুইজন আর ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন মাদক মামলার এক আসামি।
সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, সাতক্ষীরার বাঁশদহায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এ সময় পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত দুই মাদক ব্যবসায়ী হলেন সদর উপজেলার বাঁশদহা গ্রামের আবদুল গনির ছেলে দেলোয়ার হোসেন ও কলারোয়ার কেড়াগাছি গ্রামের আবুল কাসেমের ছেলে আবুল কালাম আজাদ। তারা দুজনেই আন্তঃজেলা মাদক ব্যবসায়ী বলে জানিয়েছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলাও রয়েছে। সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফ আহমেদ জানান, শনিবার বিকেলে মাদক ব্যবসায়ী দেলোয়ার ও আবুল কালামকে কিছু গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ গোয়েন্দা পুলিশ বাঁশদহা বাজার থেকে আটক করে। রাতে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তারা স্বীকার করে যে আজ রাতে মাদকের একটি বড় চালান ভারত থেকে আসবে। তাদের নিয়ে মাদকের চালান উদ্ধারে যায় পুলিশ।
তিনি জানান, বাঁশদহার কয়ার বিল এলাকায় পৌঁছাতেই আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা তাদের সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছোড়ে। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। তিনি জানান, গোলাগুলির এক পর্যায়ে তাদের দুজনকে গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায়। গ্রামবাসীর সহায়তায় তাদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
তাদের কাছ থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, ১ রাউন্ড গুলি ও কিছু মাদক সামগ্রী উদ্ধার করা হয়েছে।
আহত পুলিশ সদস্য এসআই রিয়াদুল, এসআই সুমন, এএসআই মাজেদুল ও দুই কনস্টেবল রুবায়েত ও তুহিনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহ ও ভালুকা প্রতিনিধি জানান, ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মাদক মামলার এক আসামি নিহত হয়েছেন। নিহত মুরাদ আকন্দ (৩০) ভালুকা উপজেলার বগাজান গ্রামের শাহজাহান আকন্দের ছেলে।
তার বিরুদ্ধে মাদক চোরাচালানসহ বিভিন্ন অভিযোগে চারটি মামলা রয়েছে বলে ভালুকা থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার জানান। তিনি বলেন, উপজেলার উথুরা গ্রামে মাদকের চালানের ভাগ-ভাটোয়ারা চলছে খবর পেয়ে শনিবার রাত ২টার দিকে সেখানে অভিযানে যায় পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি করে। পুলিশও তখন পাল্টা গুলি ছুড়লে মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটে। পরে সেখানে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, এ অভিযানে দুই পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এদিকে ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ফিরোজ তালুকদার জানান, মুরাদ আকন্দ একজন শীর্ষ সন্ত্রাসী, ডাকাত সর্দার তার বিরুদ্ধে ডাকাতি ও ওরেন্টসহ ৫টি মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে দেশীয় অস্ত্র ১টি রামদা, ১টি চাপাতি ১টি ছুড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। তার মৃত্যুতে এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।