আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের বর্ণাঢ্য অভিষেক

সাংবাদিকরা সমাজ পরিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন

আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের অভিষেক অনুষ্ঠানে নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক ও বিশিষ্টজনরা বলেছেন, সমাজের অসংগতি দূর করতে, সমাজকে পরিবর্তন করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন সাংবাদিকরা। দুনিয়াব্যাপী সাংবাদিকরা গণতন্ত্রের অতন্দ্র প্রহরীর মত কাজ করছেন। তবে তারা ঐক্যবদ্ধ থাকলে অনেক অজেয়কে জয় করা যেত। স্থানীয় সময় ১১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার রাতে নিউইয়র্কের উডসাইডের গুলশান টেরেসে আয়োজিত এ বর্ণাঢ্য অভিষেক অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন জনপ্রিয় ও নন্দিত সংগীত শিল্পী সুবীর নন্দী। নিউইয়র্কের দুই সংগীত শিল্পী রানু নেওয়াজ এবং শাহ মাহবুবও সংগীত পরিবেশন করেন।

আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাপ্তাহিক দেশকণ্ঠ সম্পাদক দর্পণ কবীর অভিষেক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও সাপ্তাহিক আজকালের নির্বাহী সম্পাদক শাহাব উদ্দিন সাগর।

সম্মানিত অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কুইন্স বোরো প্রেসিডেন্ট মেলিন্ডা কাট জব লেন, সাংবাদিকরা মানুষের ঘরের ভেতরে প্রবেশ করতে পারেন। তাদেরকে মানুষ বিশ্বাস করে। সেই দায়িত্ব তারা নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করছেন।

তিনি জানান, নিউইয়র্কে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ভাস্কর্য স্থাপনের জন্যে এরই মধ্যে ১ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে অন্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও সাপ্তাহিক আজকালের প্রধান সম্পাদক এবং প্রকাশক, জেবিবি’র সাবেক সভাপতি জাকারিয়া মাসুদ জিকো, সাপ্তাহিক আজকালের সম্পাদক মনজুর আহমদ, নিউইয়র্ক-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাপ্তাহিক বাংলাদেশ সম্পাদক ওয়াজেদ এ খান, সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টেলিভিশনের সিইও আবু তাহের, সাপ্তাহিক জন্মভূমি সম্পাদক রতন তালুকদার, সাপ্তাহিক বর্ণমালা সম্পাদক মাহাফুজুর রহমান, জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশি বিজনেস এসোসিয়েশন(জেবিবি) এর সভাপতি শাহ নেওয়াজ, কলামিস্ট মুক্তিযোদ্ধা আবু জাফর মাহমুদ, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার এবং আবদুর রশিদ প্রমুখ।

সাংবাদিকরা জনগণের বন্ধু, তারা সত্য উদ্ঘাটন করেন এবং তা মানুষের কাছে তুলে ধরেন। এ কারণেই অনেক অন্যায়-অবিচার রুখে দেয়া সম্ভব হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বক্তারা। অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের পেশাদারিত্বের সঙ্গে নিজেদের দায়িত্ব পালনেরও তাগিদ দেয়া হয়।

নব নির্বাচিত কমিটি ২০১৯-২০ এর নব নির্বাচিত কার্যকরী কমিটির অভিষেক উপলক্ষে ক্লাবের সহ-সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল লিটনের সম্পাদনায় ‘কথক’ নামে একটি স্মরণিকা প্রকাশ করা হয়। এতে দেশ ও প্রবাসের গুরুত্বপূর্ণ সাংবাদিকদের লেখা সন্নিবেশিত হয়েছে।

অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন টিভি নিউজ প্রেজেন্টার ও উপস্থাপিকা শামসুন নাহার নিম্মি। অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ ছিলেন বিশিষ্ট কণ্ঠ শিল্পী সুবীর নন্দী। তিনি একের পর এক জন প্রিয় গান গেয়ে শোনান। এ ছাড়া বিজয়ের এই মাসে স্বাধীনবাংলা বেতার কেন্দ্রে দুই শিল্পী রথীন্দ্র নাথ রায় এবং শহীদ হাসানকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। উত্তর আমেরিকার দুই জন প্রিয় সংগীতশিল্পী শাহ মাহবুব ও রানো নেওয়াজও সংগীত পরিবেশন করেন। সুবীর নন্দীর গানের আগেই পরিবেশন করা হয় রাতের খাবার। অনুষ্ঠানে সুবীর নন্দী অন্তত ১০টি সংগীত পরিবেশন করে শোতাদের মুগ্ধ করেন।

অনুষ্ঠানে ক্লাবের কার্যকরী কমিটির সদস্যদের মধ্যে সভাপতি দর্পণ কবীর, সাধারণ সম্পাদক শাহাব উদ্দিন সাগর, সহ-সভাপতি বেলাল আহমেদ, সহ-সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল লিটন, কোষাধ্যক্ষ তাপস কুমার সাহা, কার্যকরী সদস্য আবু বকর সিদ্দিক, শামসুল আলম, এ হাই স্বপন, মল্লিকা খান মুনা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে রাজনীতিক, বিশিষ্টজন, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট,আমেরিকা বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের কার্যকরী সদস্য, সাধারণ সদস্য ছাড়া আমন্ত্রিত অতিথিরা অংশ নেন এ বর্ণিল অভিষেকে। অনুষ্ঠানে সু-শৃঙ্খলতা দেখে মুগ্ধ হন আমন্ত্রিত অতিথিরা।

আমন্ত্রিত অতিথিদের মাঝে অনুষ্ঠানে অংশ নেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামছুদ্দিন আজাদ, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সহ -সভাপতি গিয়াস আহমেদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মিজানুর রহমান ভূঁইয়া মিল্টন, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিম ভূঁইয়া, সাবেক ছাত্র নেতা মার্শাল মুরাদ, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী, আবুল কাশেম, কোকো পরিষদের সভাপতি শাফায়েত হোসেন রাজু, বিশিষ্ট অভিনেত্রী রেখা আহমেদ, ইয়াকুব এ খান সিপিএ, বিলাল চৌধুরী, মিসবাহ উজ জামান, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দু, আসাদুল বারী আসাদ, নজরুল ইসলাম, কলামিস্ট সুব্রত বিশ্বাস, আমজাদ হোসেন সেলিম, মকসুদুল হক চৌধুরী, কাজী আশরাফ হোসেন নয়ন, কাজী সাখাওয়াত হোসেন আজম, আহসান হাবীব, সংগীত শিল্পী সায়েরা রেজা ও কর্নেল রেজা, শো টাইম মিউজিকের আলমগীর খান আলম, ইভেন্ট ইউ এস এন্টার টেইনমেন্টের এনাম চৌধুরী, গোপাল স্যানাল, আবির আলমগীর, সাংবাদিক কানু দত্ত, সাংবাদিক হাসানুজ্জামান সাকী, সাংবাদিক শামীম আহমেদ, সাহিত্যিক আহমাদ মাযহার, সাংবাদিক মঈনুদ্দীন নাসের, লেখক ইশতিয়াক রুপু, ছড়াকার মনজুর কাদের, এফ এম মিসবাহ উজ জামান, এটর্নী মিজান চৌধুরী, রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর মইনুল ইসলাম প্রমুখ। অনষ্ঠানের আগে কার্যকরী কমিটিকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের প্রথম সচিব প্রেস নুরে এলাহী মিনা।

প্রসঙ্গত, আমেরিকা- বাংলাদেশ প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠিত হয় ২০০৮ সালের মার্চ মাসে। সেই থেকে নানা চড়াই উৎরায় আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পার করেছে দশ বছর। নতুন বছরের সূর্য উদিত হলেই আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পা দিবে ১১ বছরে। এর মধ্যে দিয়ে কাজ শুরু করবে ২০১৯-২০২০ সালের নব নির্বাচিত কার্যকরী কমিটি। অনেক আনন্দ-বেদনার মধ্য দিয়ে এ প্রেসক্লাব পরিণত হয়েছে একটি পরিবারে।

মানবকণ্ঠ/এএম