সহিংস বিক্ষোভের আশঙ্কায় বন্ধ থাকবে আইফেল টাওয়ার

ফ্রান্সে জ্বালানি তেলের ওপর আরোপের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরকারবিরোধী ‘ইয়েলো ভেস্টস’ বিক্ষোভ চলার সময় সড়কে নতুন করে সহিংসতার আশঙ্কায় আগামী শনিবার টাওয়ার বন্ধ থাকবে। এছাড়া ফ্রান্সের নিরাপত্তা জোরদার করায় ওইদিন রাস্তায় মোতায়েন থাকবে পুলিশ ও সাঁজোয়া যান। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদন থেকে এসব কথা জানা গেছে।

এই বিষয়ে ফরাসি প্রধানমন্ত্রী ফিলিপ এদুয়া একটি ঘোষণায় জানান, শনিবার আইফেল টাওয়ার খুলবে না। ফ্রান্সজুড়ে ৮৯ হাজার পুলিশ কর্মকর্তা ও সাঁজোয়া যান মোতায়েন থাকবে। প্যারিসের চ্যাম্পস-এলিসিস-এ দোকান ও রেস্তোরাঁগুলো বন্ধ রাখার আহ্বান জানিয়েছে পুলিশ। বাইরে থাকা টেবিল-চেয়ারও সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে। স্থগিত করা হয়েছে বেশ কয়েকটি ফুটবল ম্যাচও।

জ্বালানির কর বৃদ্ধির প্রতিবাদে ফ্রান্সে গত ১৭ নভেম্বর থেকে চলছে ‘ইয়েলো ভেস্টস’ আন্দোলন। ফ্রান্সের ইতিহাসে গত এক দশকেরও বেশি সময়ের মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ। ক্রমাগত এ আন্দোলন আরও জোরালো হয়ে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে পরিণত হতে থাকে। একইসঙ্গে সহিংস রূপ ধারণ করে তা। গত ১ ডিসেম্বর প্যারিসের রাস্তায় কয়েক দশকের সবচেয়ে ভয়াবহ সহিংসতা হতে দেখা গেছে। সহিংসতায় প্রাণ হারায় তিনজন। ইয়েলো ভেস্টস আন্দোলনকারীরা হলুদ রঙের জ্যাকেট পরে রাস্তায় নামে। প্রতীকীভাবে হলুদ রঙ বেছে নেওয়া হয়েছে কারণ ফরাসি আইন অনুযায়ী প্রত্যেক গাড়িতে হলুদ রঙের কাপড় থাকতে হয়।

তুমুল বিক্ষোভের মুখে ফ্রান্স সরকার জ্বালানি কর বৃদ্ধির সিদ্ধান্তটি বাতিল করলেও বিক্ষোভকারীদের অসন্তোষ থেকেই গেছে এবং অন্য ইস্যুগুলো নিয়ে বিক্ষোভ চলছে। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বহীন ইয়েলো ভেস্টস বিক্ষোভকারীরা সরকারকে ন্যুনতম পেনশন, কর ব্যবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন, অবসরের বয়সসীমা কমানোসহ ৪০টিরও বেশি দাবি-দাওয়া ছুড়ে দিয়েছে। শনিবার উগ্র ডানপন্থী ও বামপন্থী দুই পক্ষের আন্দোলনকারীরাই রাস্তায় নামতে যাচ্ছে।

মানবকণ্ঠ/এআর