সদরঘাটে নৌকাডুবি: এখনও সন্ধান মেলেনি নিখোঁজ ছয়জনের

সদরঘাটে নৌকাডুবি: এখনও সন্ধান মেলেনি নিখোঁজ ছয়জনের

সদরঘাটের বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চের ধাক্কায় নৌকাডুবিতে নিখোঁজ ছয়জনের সন্ধান মেলেনি এখনও। প্রায় সাড়ে ১২ ঘণ্টার মতো সময় পেরিয়ে গেলেও এখনো খোঁজ মিলছে না ডুবে যাওয়া একই পরিবারের ছয়জনের। এখনো ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলের সদস্যরা নিখোঁজদের উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত রেখেছেন। নিখোঁজদের সন্ধানে উদ্ধার অভিযান চললেও লঞ্চ চলাচলের কারণে উদ্ধার কাজ করতে ব্যাহত হচ্ছে।

শুক্রবার সকালে উদ্ধার অভিযানের নেতৃত্বে থাকা ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মানিকুজ্জামান বলেন, ঘটনাস্থল ও এর আশপাশে কর্ডন করে এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। পানির নিচেও ডুবুরিরা খোঁজ করছেন। তবে এখন পর্যন্ত ডুবে যাওয়া কাউকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। পানির রঙ কালো হওয়ায় উদ্ধার অভিযানে কিছুটা বেগ পেতে হচ্ছে। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি নিখোঁজদের উদ্ধারে।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে নৌকাডুবির ঘটনা নিশ্চিত করে সদরঘাট নৌ পুলিশের ওসি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, নিখোঁজরা সবাই একই পরিবারের সদস্য। লঞ্চের ধাক্কায় নৌকাটি ডুবে গেছে। উদ্ধার অভিযানে নৌ পুলিশও কাজ করছে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১০টার দিকে কামরাঙ্গীরচর থেকে একটি পরিবারের সাত সদস্য ডিঙি নৌকা করে সদরঘাটে আসছিল। ঘাটে আসার সময় লঞ্চ সুরভী-৭ ঘুরছিল। এসময় সুরভী-৭ এর ধাক্কায় ডুবে যায় ডিঙি নৌকাটি। ঘটনার পরপরই সাতজনের মধ্যে শাহজালাল নামে একজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। লঞ্চের পাখায় তার পা কেটে গেছে।

নিখোঁজরা হলেন আহত শাহজালালের স্ত্রী শাহিদা এবং তাদের দুই মেয়ে মীম ও মাহি, শাহজালালের ভাই দেলোয়ার, তার স্ত্রী জামশিদা ও তাদের ৭ মাস বয়সী শিশু সন্তান স্নেহা।

মানবকণ্ঠ/এসএস