লোহাগাড়ায় ৫ম শ্রেণির ছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ : ধর্ষক জাহেদ গ্রেফতার

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা :
চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় ৫ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ করার অপরাধে মো. জাহেদ (২০) নামের এক কাঠমিস্ত্রিকে রোববার রাতে আটক করেছে লোহাগাড়া থানা পুলিশ। ঘটনাটি ঘটে শনিবার।
জানা যায়, ভিকটিম শিক্ষার্থী ঈদের দিন শনিবার দুপুরে তার চাচাতো চাচার সঙ্গে তার ফুফুর বাড়ি উপজেলার চুনতি সাতগর এলাকায় বেড়াতে গেলে সেখান থেকে ফেরার পথে গতিরোধ করে ওই শিক্ষার্থীকে জোর করে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায় ধর্ষক। ঘটনা জানাজানি হলে ভিকটিমের স্বজনরা খোঁজাখুঁজি করলে কক্সবাজার জেলার চকরিয়া হারবাং এলাকায় ধর্ষক জাহেদের বন্ধু রেজাউল নামের একজনের বাড়িতে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। রোববার রাতে লোহাগাড়া থানা পুলিশ ধর্ষক জাহেদকে উপজেলার চুনতি বাজার থেকে আটক করে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে ভিকটিমের বাবা রিকশাচালক বাদী হয়ে লোহাগাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৩, তারিখ: ১৭/০৬/২০১৮ ইং। স্থানীয়রা বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মেয়েটিকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। অপহরণ ও ধর্ষণকারী উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। পরদিন স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ ধর্ষক জাহেদকে আটক করতে সক্ষম হয়।
এদিকে ভিকটিমের বাবা রিকশাচালক কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার মেয়েকে প্রায় সময় মাদরাসায় যাওয়ার পথে ধর্ষক জাহেদ বিরক্ত করত। এ ব্যাপারে তার পরিবারকে অভিযোগ করায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে ঈদের দিন আমার মেয়ে বেড়াতে যাওয়ার সময় পিছু নিয়ে অপহরণ করে ধর্ষণ করে। তিনি ধর্ষকের উপযুক্ত শাস্তি কামনা করছেন।
লোহাগাড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবদুল জলিল বলেন, ৫ম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে ধর্ষণ করার অপরাধে ধর্ষক জাহেদকে লোহাগাড়া থানা পুলিশ আটক করেছে। তার বিরুদ্ধে লোহাগাড়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) আইনে মামলা রুজু করে আদালতে প্রেরণ করা হয়। তিনি আরো বলেন, ধর্ষক জাহেদ থানায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসায় ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে।