রোহিঙ্গা সংকটে ঐক্যে ভয় পায় সরকার: ফখরুল

‘বশংবদ’ রাজনীতির কারণেই রোহিঙ্গা সমস্যা মোকাবিলায় সরকার জাতীয় ঐক্য করতে ভয় পাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার বিকেলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে এক স্মরণ সভায় নিউইয়র্কে জাতীয় ঐক্যের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমাদের সঙ্গে ঐক্য অন্য কোনো কারণে করতে বলিনি, জনগণের ঐক্য তৈরি করতে বলেছি। আমি বলব, এই সংকীর্ণতা বাদ দিয়ে, এই আমিত্ব বাদ দিয়ে আসুন সমগ্র জনগনকে সঙ্গে নিয়ে এই চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করুন। ইনশাল্লাহ জনগণের ঐক্য তৈরি করেই আমরা এই চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে সক্ষম হবো।

তিনি বলেন, আপনারা (সরকার) এখন পর্য়ন্ত মিয়ানমারের রাখাইনে যা হচ্ছে তাকে গণহত্যা বলতে পারলেন না। এখন পর্যন্ত মিয়ানমার সরকারের কোনো নিন্দা করেননি। এই বিষয়গুলো থেকে বুঝা যায় এখনো আপনারা সেই বংশবদ রাজনীতির মধ্যেই রয়েছেন।

তিনি ভারতের দিকে ইঙ্গিত করে সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন, এখনো আপনারা (সরকার) ভয় পান অন্যরা যারা মিয়ানমারকে সমর্থন দিচ্ছে তারা আপনাদের প্রতি বিরাগভাজন হয়ে যান সেজন্য আপনারা জাতীয় ঐক্য না করার কথা বলছেন। সেজন্য আমাদের (বিএনপি) সঙ্গে ঐক্য করতে চাইছেন না।

শুক্রবার নিউইয়র্কে এই সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিএনপির মতো একটি সন্ত্রাসী দল, জঙ্গিবাদী দল তাদের সঙ্গে বসতে হবে। তাদের সঙ্গে বসে সমাধান করতে হবে এ কথাটা আর কেউ বলবেন না, সেটা আমার কাছে গ্রহণযোগ্য না।

১৯৭৮ সালে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও ১৯৯২ সালে বেগম খালেদা জিয়ার আমলে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ‘সফল আলোচনা ও চুক্তির মাধ্যমে’ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়টি তুলে ধরেন ফখরুল।

রোহিঙ্গা সমস্যার বিষয়টি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে তোলার জন্য সংস্থার মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, জাতিসংঘের মহাসচিব রোহিঙ্গা বিষয়টি আলোচনার জন্য নিরাপত্তা পরিষদের চিঠি দিয়েছেন। আমি ধন্যবাদ জানাই ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফাস্টলেডিকে সমস্যার প্রকটতা অনুধাবন করে বাংলাদেশে এসে সরকারের চোখ খুলে দিয়েছেন। ধন্যবাদ জানাই দেশের কোটি কোটি মানুষকে তারা আজকে ত্রাণ দিয়ে ছুটে যাচ্ছেন কক্সবাজারে এই হতভাগ্য দুর্গত মানুষগুলো পাশে দাঁড়াবার জন্যে।

বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেন, ক্ষমতাসীনরা উন্নয়নের নামে ‘মেগা প্রকল্প’ বানিয়ে ‘মেগা লুট’ করছে। প্রয়াত নেতা কাজী জাফরের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যাটা ক্ষমতাসীন দলের সমস্যা না, এটা একটি জাতীয় সমস্যা। এই সমস্যা সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধভাবে সমাধান করবে অন্য কেউ না।

জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এটিএম ফজলে রাব্বি চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম মহাসচিব এএসএম শামীমের পরিচালনায় আলোচনা সভায় পার্টির মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. মাহবুবউল্লাহ, জাগপা চেয়ারম্যান রেহানা প্রধান, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএমএম আলম, আহসান হাবিব লিংকন, নওয়াব আলী আব্বাস খান, মজিবুর রহমান, হোসনে আরা হাসান, প্রয়াত নেতার মেয়ে কাজী জয়া প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ