রাজনীতি আমার কাছে ভোলেন্টারি ওয়ার্ক: প্রকৌশলী তুহিন খান

আগামী জাতীয় নির্বাচনে নেত্রকোনা- ৫ (পূর্বধলা) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী যুক্তরাজ্যের লন্ডন মহানগর আওয়ামী যুবলীগের সহ-সভাপতি প্রকৌশলী তুহিন আহমদ খান বলেছেন, রাজনীতি আমার কাছে ভোলেন্টারি ওয়ার্ক (সেচ্ছায় কাজ)। আমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দেশ ও এলাকার মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। সুখে-দুঃখে তাদের পাশে থাকতে চাই। মঙ্গলবার দৈনিক মানককণ্ঠকে দেয়া একান্ত সাক্ষাত্কারে তিনি এসব কথা বলেন।

স্কুল জীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত এই নেতা ময়মনসিংহ পলিটেকনিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পরে পড়াশোনার জন্য চলে যান দেশের বাইরে। পড়াশোনা শেষে সেখানে কর্মজীবনের পাশাপাশি যুক্ত ছিলেন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে। তিনি বলেন, আমি রাজনীতির মানুষ। মাঝে কিছুদিন কর্মে বেশি সময় দিলেও রাজনীতির বাইলে ছিলাম না। আমার ধারণা ছিল- আগে নিজেকে সাবলম্বী হতে হবে। আমি দুর্নীতিকে ঘৃণা করি। পরিশ্রম করে সফল হয়েছি। এখন এলাকার মানুষের জন্য কাজ করতে চাই।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের বিষয়ে নিজের আশাবাদের কথা জানিয়ে বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদের ময়মনসিংহ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি তুহিন বলেন, আমি যেমন জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী, তেমনি আরো অনেকেই মনোনয়ন প্রত্যাশী। নির্বাচন করতে মনোনয়ন সবাই চাইতে পারেন। এতে দোষের কিছু নেই। কিন্তু মাথায় রাখতে হবে আমরা সবাই আওয়ামী লীগের। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আমাদের পথচলা। এখানে কোনো বিরোধ নেই। তাই সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থেকে নির্বাচনের জন্যে মাঠে কাজ করে যেতে হবে। দল যাকেই মনোনয়ন দেবে তাকেই জয়ী করতে সবাইকে কাজ করতে হবে।

আগামী জাতীয় নির্বাচনে নেত্রকোনার পূর্বধলার মানুষ নেতৃত্ব পরিবর্তনের পক্ষে এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমার এলাকার মানুষ শান্তিপ্রিয়। এখানকার মাটি আওয়ামী লীগের ঘাটি। এলাকার উন্নয়ন, দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন, রাজনীতিতে স্বচ্ছতা বজায় রাখা, নিয়োগবাণিজ্যসহ অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে জনগণ আরো বেশি আওয়ামী লীগের পতাকাতলে ঐক্যবদ্ধ হচ্ছেন। এলাকার নেতা-কর্মী, সমর্থকেরা গণজোয়ার তৈরি করছেন আগামীতে আবারো শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী বানাতে।

তরুণ এই নেতা মনে করেন, রাজনীতিতে অবশ্যই তরুণদের আসতে হবে, কারণ তরুণরাই তরুণদের মনের কথা সবচেয়ে ভাল বুঝতে পারে। তিনি বলেন, আমি যেভাবে মেধা, সময় ও শ্রম দিতে পারবো তা অন্য কারও পক্ষে দেয়া কঠিন। তরুণরা আমার সঙ্গে যেভাবে মিশতে পারবে অন্যদের সঙ্গে পারবে না। তাছাড়া তরুণদের চিন্তা চেতনার সঙ্গে আমাদের চিন্তা চেতনায় সবচেয়ে বেশি মিল থাকবে।

আওয়ামী পরিবারের এই সদস্য বলেন, আমি দলীয় মনোনয়ননের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। এলাকার মানুষ আমাকে চায়। দলীয় নেতাকর্মীরাও আমার সঙ্গে আছে। কারণ আমাকে নিয়ে কোনো সমালোচনা নেই। মানুষ আমার জন্য রোজা রাখে, নফল নামাজ পড়ে, কোরআন খতম করে। এটাই তো আমার কাছে বড় পাওয়া।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ