রংপুর সিটি নির্বাচনে শাসকদলের হুমকি-ধামকি বাড়ছে: রিজভী

রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই শাসক দলের হুমকি-ধামকি বাড়ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। তিনি একই সঙ্গে আরও দাবি করেন যে, সেখানকার বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। সোমবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন তিনি।

রিজভী বলেন, ভোটের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই শাসকদলের সন্ত্রাসীদের হুমকি-ধামকি বাড়ছে। শুরু থেকেই বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থীকে নির্বাচন থেকে সরিয়ে দিতে চেষ্টা করা হয়েছিল। এখন বিএনপি নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা যাতে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে না পারে, সেজন্য বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। অথচ বিএনপি মনোনীত প্রার্থীকে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় বাধার সৃষ্টি করা হয়। কিন্তু ক্ষমতাসীনরা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালালেও সেক্ষেত্রে পুলিশ ও প্রশাসন সম্পূর্ণ নির্বিকার।

রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে জিয়া পরিবরাকে নিয়ে ‘কটূক্তি’ করেছেন অভিযোগ করে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, পরনিন্দায় অন্তহীন মুখর থাকাটাই প্রধানমন্ত্রীর একমাত্র কাজ, এছাড়া তিনি দেশকে কিছুই দিতে পারবেন না। স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের বিষয়ে আওয়ামী লীগের ব্যর্থতার কারণেই জিয়াউর রহমান ও বিএনপির বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর এতো ক্ষোভ।

সরকার জাতিকে কেলেঙ্কারি ছাড়া আর কিছুই উপহার দিতে পারেননি মন্তব্য করে তিনি বলেন, রাজকোষ কেলেঙ্কারি, শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারি, বেসিক ব্যাংকসহ সোনালী, রূপালী, জনতা, অগ্রণী, ফারমার্স ব্যাংক ও বিভিন্ন আর্থিক কেলেঙ্কারির ধাত্রীমাতা হচ্ছে আওয়ামী সরকার। সব শেষে আজও আর্ন্তজাতিক গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়েছে-দ্বিতীয় শ্রেণির প্রশ্নও ফাঁস; বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। এটা গোটা জাতির জন্য লজ্জা।

পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসে ছাত্রলীগের নেতারা জড়িত অভিযোগ করে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষকারী বাহিনীর হাতে যারা আটক হয়েছে তারা ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতা-কর্মী।

মানবকণ্ঠ/বিজে/এফএইচ