রংপুরে সব প্রার্থীর সমান সুযোগ তৈরি হয়নি: রিজভী

রুহুল কবির রিজভী

দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা ভোটারদের যেভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে তাতে করে রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে কি না তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দিহান। নির্বাচন কমিশনকে বলতে চাই ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীদের পেছনের দরজা দিয়ে বিজয়ী করতে কারচুপির চেষ্টা করলে জনগণ উপযুক্ত জবাব দেবে। তাই অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনী পরিবেশ তৈরিতে সেনা মোতায়েন করার দাবি জানাচ্ছি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে ম্যাজিট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, রংপুর সিটি নির্বাচনে সব প্রার্থীর সমান সুযোগ তৈরি হয়নি। ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবে ভোটাররা এখনো ভয়ভীতির মধ্যেই রয়েছেন। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে কী না, এ ব্যাপারে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আচরণবিধি লঙ্ঘন করলেও ইসি (নির্বাচন কমিশন) তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। সেখানে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনী পরিবেশ এখনো করতে পারেনি ইসি। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নেতৃত্বে কমিশনের ঊর্ধ্বতন ব্যক্তিদের মানসিকতা স্বাধীন না হলে কমিশনের আইনি স্বাধীনতা কোনো কাজে আসে না। তিনি বলেন, বিএনপির পক্ষ থেকে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরির জোর দাবি জানানো হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আগামী ২১ ডিসেম্বর রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে গণমাধ্যমে প্রকাশিত ১৯৬টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৩৩টিই ঝুঁকিপূর্ণ। নির্বাচন কমিশন দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে না। ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা গোটা এলাকায় ভয়ভীতি ছড়াচ্ছে বলেও প্রার্থীরা অভিযোগ করেছেন। এমনকি ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীকে শুরু থেকে যেভাবে হয়রানি করা হয়েছে তাও নজিরবিহীন।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আবুল খায়ের ভুইয়া, আব্দুস সালাম, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, মীর সরাফত আলী সপু, আব্দুস সালাম আজাদ, আব্দুল আউয়াল খান, মুনির হোসেন ও আমিনুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মানবকণ্ঠ/এসএস