মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা দিল এমজেসিবি

মিডিয়া জার্নালিস্ট ক্লাব অব বাংলাদেশ (এমজেসিবি) মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদান করেছে। রাজধানীর পূর্ব বাড্ডায় সোমবার স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে এমজেসিবি আয়োজিত ‘গণহত্যা ও স্বাধীনতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বাড্ডা থানার পাঁচ মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা প্রদান করে। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি খন্দকার মোজাম্মেল হক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোজাম্মেল হক বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা বাংলার দামাল ছেলে। তারা বঙ্গবন্ধুর ডাকে নিজের জীবন বাজি রেখে এই দেশ আমাদের উপহার দিয়েছেন। আর বঙ্গবন্ধু-কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দিয়েছেন এবং তাদের নিয়ে আরো বৃহৎ আকারের পরিকল্পনা করছেন।

সাংবাদিক নেতা আরো বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ সন্ধ্যা পর্যন্ত বাংলার মানুষ জানত না ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী ঝাঁপিয়ে পড়বে। কিন্তু রাতে রাজারবাগ পুলিশ লাইন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর আশপাশের এলাকায় নিরস্ত্র ঘুমন্ত মানুষের ওপর অত্যাধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ইতিহাসের সবচেয়ে বর্বোরচিত ও নিকৃষ্টতম গণহত্যা চালায় পাকিস্তানি সেনারা।

এর আগে সভার শুরুতে কোরআন তেলোয়াতের পর জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন এবং সব শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

সংগঠনের সভাপতি বাদল চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সদস্য বাংলাদেশ বেতারের নাজমুল হুদার পরিচালনায় প্রধান বক্তা ৩৭, ৪১, ৪২নং ওয়ার্ড সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর কামরুন নাহার এবং বিশেষ অতিথি বাড্ডা থানার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. আব্দুল আউয়াল ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. মজিবুর রহমান বক্তব্য রাখেন। এ ছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের নির্বাহী সদস্য শহীদ রানা, দৈনিক বর্তমানের সাইফুদ্দিন জাফর ও সোহেল রানা, বিটিভির লিজা ইসলাম প্রমুখ। এ সময় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রারজানা সুলতানা ও ঢাকা সাব-এডিটরর্স কাউন্সিলের কোষাধ্যক্ষ কাউসার খোকন ছিলেন।

মানবকণ্ঠ/এএম