মিয়ানমারে ফিরতে চায় না রোহিঙ্গারা, ক্যাম্পে বিক্ষোভ

মিয়ানমারে ফিরতে চায় না রোহিঙ্গারা, ক্যাম্পে বিক্ষোভ

মিয়ানমারে ফিরতে চায় না রোহিঙ্গারা। এ কারণে প্রত্যাবাসন না করার দাবিতে কক্সবাজারের টেকনাফের একটি ক্যাম্পে বিক্ষোভ করেছে তারা। বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে টেকনাফের উৎচিপ্রাংয়ের পুটিবনিয়া ক্যাম্পে এ বিক্ষোভ শুরু হয়। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ৫টি বাস রোহিঙ্গাদের আনতে গেলে এ বিক্ষোভ শুরু করে তারা।

জানা যায়, প্রথম দফায় প্রত্যাবাসনের জন্য কিছুসংখ্যক রোহিঙ্গা শরণার্থীকে টেকনাফের উনচিপাং এলাকার ২২ নম্বর ক্যাম্পে জড়ো করার পর তারা ‘ন যাইয়ুম, ন যাইয়ুম’ (যাব না, যাব না) স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন। ওই ক্যাম্প থেকে আগামী তিন দিনে প্রত্যাবাসিত হওয়ার জন্য ২৯৮ রোহিঙ্গার একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছিল।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সেখানে উপস্থিত রোহিঙ্গাদের জানানো হয় যে, তাদের জন্য অন্তত তিন দিনের খাবার-দাবার ও জরুরি প্রয়োজনের দ্রব্যাদিসহ বাসে করে মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের নিরাপত্তার বিষয়টিও নিশ্চিত করা হয়। এর পর তাদের বাসে ওঠার আহ্বান জানালে মিয়ানমারে যাব না বলে স্লোগান দেয়া শুরু করেন।

বেলা দেড়টার দিকে সেখানে শত শত রোহিঙ্গাকে বিক্ষোভ করতে দেখা যায়। সেখানে র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি সদস্য মোতায়েন রয়েছে। এর মধ্যেও রোহিঙ্গারা স্লোগান দিচ্ছেন। বিক্ষোভ প্রদর্শনের সময় কয়েকজনের হাতে প্ল্যাকার্ড দেখা যায়; যেখানে তারা মিয়ানমারের নাগরিকত্ব প্রদান, নিরাপত্তার নিশ্চয়তাসহ পাঁচ দফা দাবি তুলে ধরেন।

বিক্ষোভে রোহিঙ্গারা বলছে, তাদের আট দফা দাবি না মানলে তারা মিয়ানমার যাবে না। এদিকে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে। রোহিঙ্গারা যেতে না চাওয়ায় প্রত্যাবাসন এক প্রকার অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

এর আগে সকালে ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম জানান, স্বেচ্ছায় যেসব রোহিঙ্গারা ফিরে যেতে চায় তাদের নিয়ে প্রত্যাবাসন শুরু হবে।

মানবকণ্ঠ/এসএ