মাহবুবুল এ খালিদের হোলির গান ‘রাঙিয়ে দাও হাজার রংয়ে’

মাহবুবুল এ খালিদের হোলির গান ‘রাঙিয়ে দাও হাজার রংয়ে’

মহা আড়ম্বরে পালিত হচ্ছে দোলযাত্রা বা হোলি উৎসব। হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা পরস্পরকে আবীর মাখিয়ে দোলযাত্রা বা হোলি উৎসব উদযাপন করেন। এ উৎসবের আগের দিন বিশেষ বহ্নি উৎসবের আয়োজন করা হয়। যাকে বলা হয় হোলিকা দহন।

বৈষ্ণব বিশ্বাস অনুযায়ী, ফাল্গুনী পূর্ণিমা বা দোল পূর্ণিমার দিন বৃন্দাবনে শ্রীকৃষ্ণ আবির বা গুলাল নিয়ে রাধিকা ও অন্যান্য গোপীদের সঙ্গে রং খেলায় মেতেছিলেন। এর স্মরণে দোলযাত্রার দিন সকালে ভগবানকৃষ্ণ ও রাধার বিগ্রহ আবির ও গুলালে স্নান করিয়ে দোলায় চড়িয়ে কীর্তন গানসহকারে শোভাযাত্রা বের করা হয়।

দোল আমাদের ঋতুচক্রের শেষ উৎসব। পাতাঝরার সময়, বৈশাখের প্রতীক্ষা। এই সময় পড়ে থাকা গাছের শুকনো পাতা, তার ডালপালা একত্রিত করে জ্বালিয়ে দেয়ার মধ্যে এক সামাজিক তাৎপর্য রয়েছে। পুরনো জঞ্জাল, রুক্ষতা, শুষ্কতা সরিয়ে নতুনের আহ্বান হচ্ছে এই হোলি।

দোলযাত্রা বা হোলি উৎসব নিয়ে চমৎকার একটি গান লিখেছেন কবি, গীতিকার ও সুরকার মাহবুবুল এ খালিদ। যার শিরোনাম ‘রাঙিয়ে দাও হাজার রংয়ে’। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় এই উৎসবের প্রেক্ষাপট ও তৎপর্য এই গানটির মাধ্যমে স্পষ্টভাবে প্রকাশ পেয়েছে।

গানটির সুর করেছেন সদ্যপ্রয়াত জনপ্রিয় সুরকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। আর কণ্ঠ দিয়েছেন কিশোর দাশ এবং লুইপা। এটি মাহবুবুল এ খালিদের নিজস্ব ওয়েবসাইট www.khalidsangeet.com-এ প্রকাশিত হয়েছে।

‘রাঙিয়ে দাও হাজার রংয়ে, রাগে অনুরাগে। দূর কর সব হীনতা দীনতা, বিলাও ত্যাগে ত্যাগে।’ এমন আহ্বানে গানটি শুরু হয়েছে।

হোলিকা দহনে সব অশুভ জ্বলে-পুড়ে যাক। হোলির রংয়ে সবার মনের আকাশ রঙিন হয়ে উঠুক। এর মাধ্যমেই গড়ে উঠুক ভ্রাতৃত্ব ও মৈত্রী। সবার মাঝে ছড়িয়ে পড়ুক দোলের খুশি। এমন আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়েছে মাহবুবুল এ খালিদের গান ‘রাঙিয়ে দাও হাজার রংয়ে’-এ।

‘রাঙিয়ে দাও হাজার রংয়ে’ গানটির ওয়েবসাইট লিংক: http://www.khalidsangeet.com/musics/details/holi-khela-rangiye-dao

মানবকণ্ঠ/এসএস