মালয়েশিয়ায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় উদ্যোক্তা সম্মেলন ‘জিইবি-২০১৮’ অনুষ্ঠিত

মালয়েশিয়ায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় উদ্যোক্তা সম্মেলন 'জিইবি-২০১৮' অনুষ্ঠিতমালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে অনুষ্ঠিত হলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় যুব উদ্যোক্তা আসর গ্লোবাল অন্ট্রপ্রেনারশিপ বুটক্যাম্প বা জিইবি। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এই সংগঠনটির চতুর্থ ইভেন্টে ১৭-২০ ডিসেম্বর বিশ্বের ৪০টি দেশ থেকে সফল উদ্যোক্তাগণের পাশাপাশি ১৫০ জন মেধাবী তরুণ-তরুণীরা অংশ নেয়।

এমআইটি স্লোগান স্কুল অফ ম্যানেজমেন্টের সহযোগিতায় যুক্তরাষ্ট্রের লিঙ্কন ইউনিভার্সিটি কলেজ এবং এশিয়া স্কুল অফ বিজনেস (এএসবি) যৌথভাবে ইভেন্টটির সেশন পরিচালনা করে। বিশ্বের বড় বড় বিনিয়োগকারীরা ও তরুণ উদ্যোক্তাদের অনন্য মিলনমেলায় পরিণত হয় এই আয়োজন। অভিজ্ঞ মেন্টররা মেধাবীদের নিয়ে টিম গঠন, ইন্টারেক্টিভ টক সেশন, স্টার্টআপ ওয়ার্কআউট, ব্যবসায়িক মডেল গঠন, উদ্ভাবনী ব্যবসায়িক ধারণার অবতারণা এবং অন্য সম্পর্কিত আয়োজনগুলো দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করেন।

বাংলাদেশভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংগঠন লিডসাস গ্লোবাল অ্যাকশন জিইবির মালয়েশিয়া আসরের অন্যতম পার্টনার হিসেবে অংশগ্রহণ করে। এলজিএ-এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রেসিডেন্ট সাদিক আল সরকার ইভেন্টটিতে উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, ‘জিইবি তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য সবচেয়ে বড় প্ল্যাটফর্ম। আয়োজনটিতে বিশ্বজুড়ে সফল উদ্যোক্তারা নতুনদের কাছ থেকে বিভিন্ন আইডিয়া সম্পর্কে জানতে পারেন এবং সে অনুযায়ী সঠিক দিক নির্দেশনা প্রদান করে তাদের অনুপ্রাণিত করেন। তাছাড়া আইডিয়া কন্টেস্টে মেধাবী বিজয়ীরা ইনভেস্টরদের সহযোগিতায় সফল উদ্যোক্তা হয়ে উঠতে পারেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘লিডসাস গ্লোবাল অ্যাকশন সবসময়ই এ ধরণের শিক্ষামূলক ও উদ্ভাবনী প্ল্যাটফর্মগুলোকে সাপোর্ট করে এসেছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারো আমরা জিইবি-মালয়েশিয়া ২০১৮-এর গর্বিত পার্টনার হিসেবে পাশে ছিলাম। জিইবির পরবর্তী উদ্যোগগুলোতেও এলজিএ পাশে থাকবে।’

গ্লোবাল অন্ট্রপ্রেনারশিপ বুটক্যাম্পের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান খগেন্দ্র আচার্য্য বলেন, ‘শুরু থেকেই, জিইবি যুব উদ্যোক্তা এবং বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আভ্যন্তরীণ সেশন এবং নেটওয়ার্কিং নিয়ে কাজ করেছে। এছাড়া বিনিয়োগকারীরা বুটক্যাম্পে অংশগ্রহণকারীদের উত্থাপিত সম্ভাবনাময় বিভিন্ন উদ্যোগসমূহের প্রতি আগ্রহ দেখিয়েছেন এবং এটা ভবিষ্যতে তাদের সঙ্গে কাজ করার জন্য খুবই ইতিবাচক।’

জিইবির সহ প্রতিষ্ঠাতা ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর পারশু আরিয়াল বলেন, ‘নির্দিষ্ট সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে গৃহীত ব্যবসায়িক উদ্যোগই উদ্ভাবন।’

শুধুমাত্র ব্যবসায়িক ধারণার প্রতিযোগিতাই নয় বরং বিভিন্ন দেশের ভাষা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে বুটক্যাম্পে অংশগ্রহণকারীরা জানতে পারেন। এতে পারস্পরিক সম্প্রীতি ও শ্রদ্ধাবোধের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপিত হয়। নতুন উৎসাহ উদ্দীপনা ও উৎসবমুখর পরিবেশে সবাই মনোমুগ্ধকর এ আয়োজন উপভোগ করেন।

মানবকণ্ঠ/আরএ