মানুষই খাচ্ছে আজব খাবার

আপনি হয়তো ভাবছেন খাবার নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট কে না করে, তাহলে এত কথা হচ্ছে কেন? আসলে তারা আমাদের মতো স্বাভাবিক খাবার খান না। তাহলে তারা কী খান? দেখে নেয়া যাকÑ

ক্লে মাস্ক
৪০ বছর বয়সী নারী নাতাশা। শুনলে অবাক হয়ে যাবেন এই মহিলার যখনই ক্ষুধা পায়, তখনই তিনি ক্লে মাস্ক খেতে শুরু করেন। গত ৭ বছর ধরে তিনি এই খাবারই খাচ্ছেন। প্রসঙ্গত, ক্লে মাস্ক মূলত ত্বকের ফেসিয়াল করার সময় কাজে লাগে।

টায়ার
১৯ বছরের মেয়ে অ্যালিসন। গত ৬ বছর ধরে এই মেয়েটি শুধু টায়ার খেয়েই বেঁচে আছে।
অ্যালিসনের যখনই ক্ষুধা পায় তখনই চুইংগামের মতো টায়ার চিবাতে শুরু করে।

সেলোটেপ
জর্জিয়ার বাসিন্দা মারিয়া। দেখতে আর পাঁচটা মানুষের মতো হলেও তার খাওয়ার ধরন একেবারেই সাধারণের মতো নয়। কেন জানেন! খিদে পেলেই মারিয়া সেলোটেপ ছাড়া আর কিছুই খান না। তার খাবারের জন্য প্রায় প্রতিমাসে ৬০০০ ফুট টেপের প্রয়োজন পড়ে। প্রসঙ্গত, গত ৯ বছর ধরে মারিয়া শুধু সেলোটেপ খেয়েই পেট ভরাচ্ছেন।

ডিওডোরেন্ট
১৯ বছরের তরুণী নিকোল। তার খাদ্যের তালিকায় ডিওডোরেন্ট ছাড়া আর কিছুই নেই। সেই ছোটবেলা থেকেই দিনে প্রায় হাফ বোতল ডিওডোরেন্ট খেয়ে পেট ভরায় এ মেয়েটি।

নীল প্লাস্টিক

২৩ বছর বয়সী এক যুবক রবার্ট। তিনি বিখ্যাত কেন জানেন? কারণ এই ছেলেটি ক্ষুধা পেলেই নীল প্লাস্টিকের ব্যাগ খায়। সে শহরের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়ায় নীল ব্যাগ সংগ্রহ করার জন্য। শুধু নীল ব্যাগ কেন? তার মতে প্লাস্টিক ব্যাগের মধ্যে নীল রঙেরটা খেতে বেশি ভালো লাগে।