মাধ্যমিক স্কুলে ১৩৭৮ শিক্ষক নিয়োগ

সারা দেশের সরকারি মাধ্যমিক স্কুলে এক হাজার ৩৭৮ জন সহকারী শিক্ষককে নিয়োগ দিতে যাচ্ছে সরকার। সহকারী শিক্ষক পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তা হওয়ায় প্রথমবারের মতো এসব পদে নিয়োগ প্রদানে রোববার রাতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অধীনে তাদের নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা অনলাইনে ওয়েবসাইটের (bpsc.teletalk.com.bd) মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। ইতিমধ্যে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আবেদন আগামী ৮ অক্টোবর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত করা যাবে।

পিএসসি জানিয়েছে, বিষয়ভিত্তিক পদসংখ্যা অনুযায়ী বাংলা বিষয়ে ৩৬৫ জন, ইংরেজি ১০৬ জন, গণিত ২০৫ জন, সামাজিক বিজ্ঞান ৮৩ জন, ভৌতবিজ্ঞান ১০ জন, জীববিজ্ঞান ১১৮ জন, ব্যবসায় শিক্ষা ৮ জন, ভূগোল ৫৪ জন, চারুকলা ৯২ জন, শারীরিক শিক্ষা ৯৩ জন, ধর্ম ১৭২ জন এবং কৃষি শিক্ষা বিষয়ে ৭২ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে। সহকারী শিক্ষক/ শিক্ষিকা পদে জাতীয় বেতনস্কেল ২০১৫ এর দশম গ্রেড অনুযায়ী ১৬,০০০- ৩৮,৬৪০ টাকা, নিয়মানুযায়ী অন্যান্য ভাতা ও সুযোগ সুবিধা।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) সূত্রে জানা গেছে, দেশে পুরনো ও সদ্য জাতীয়করণসহ ৩৪৭টি সরকারি মাধ্যমিক স্কুলে সহকারি শিক্ষকের পদ আছে ১০ হাজার ৩৪৪টি। এর মধ্যে এক হাজার ৬৯১টি পদই দীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মচারীর পদও শূন্য রয়েছে প্রায় দুই হাজার। প্রধান শিক্ষক নেই প্রায় একশর উপর স্কুলে। ৪৭১টি সহকারী প্রধান শিক্ষক পদের মধ্যে ৪৬৩টি পদ শূন্য। মাধ্যমিক স্কুলে তীব্র শিক্ষক সংকট কমাতে একসঙ্গে বড় ধরণের নিয়োগ দিতে যাচ্ছে সরকার। এছাড়া সহকারী প্রধান শিক্ষক থেকে সহকারী জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা পর্যন্ত বিভিন্ন পদে ৪২৩ জনকে পদোন্নতির তালিকাও প্রায় চূড়ান্ত করেছে কমিশন।

মাউশির তথ্যানুযায়ী, ২০১২ সাল থেকে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণিতে কারিকুলাম ও সিলেবাস পরিবর্তন করা হয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তি (আইসিটি), শারীরিক শিক্ষা, কর্মমুখী শিক্ষা, চারু ও কারকলা নতুন এ চারটি বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। নতুন বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়নি। ফলে এক বিষয়ের শিক্ষককে পাঠদান করতে হচ্ছে অন্য বিষয়ে। বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকের শূন্যতা রয়েছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত দুরূহ হয়ে পড়েছে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ