মন ভালো রাখতে বিড়াল পুষুন

মন ভালো রাখতে বিড়াল পুষুন

প্রতিদিনের অতিরিক্ত চাপে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন অনেকে। হয়তো আমাদের অজান্তেই মানসিক রোগ বাসা বাঁধতে থাকে মনের গভীরে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সমস্যার সমাধান করতে পারে বাসায় থাকা পোষা প্রাণী। মন ভালো করার জাদুকাঠিও রয়েছে তাদের হাতে! সম্প্রতি ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের (ইউসিএল) এক গবেষকদল জানিয়েছে, মন ভালো রাখতে পোষা প্রাণীদের জুড়ি মেলা ভার। তবে পোষা প্রাণীদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বিড়াল।

ইউসিএলের বিশেষজ্ঞদের দাবি, ছোট থেকেই যেসব শিশু বিড়ালের সংস্পর্শে বড় হয় তাদের মধ্যে মানসিক রোগে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা কমে। ১৯৯১ এবং ১৯৯২-তে জন্মানো পাঁচ হাজার শিশুর ওপর তাদের ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত গবেষণা চালিয়েছিলেন ইউসিএলের বিজ্ঞানীরা।

দেখা গেছে, ওই শিশুদের মায়েরা অন্তঃসত্ত্বা থাকাকালীন বা শিশুর জন্ম হওয়ার পর সেই বাড়িতে বিড়াল থাকলে শিশুর মনের ওপর তার ভালো প্রভাব পড়ে। বছরখানেক আগে একটি গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দাবি করেছিলেন, টোক্সোপ্লাজমা গণ্ডি নামের এক ধরনের পরজীবীর প্রধান বাহক বিড়াল। যা অনেক সময় সিজোফ্রেনিয়ার মতো মানসিক রোগের সমস্যা বাড়ায়। তবে নতুন গবেষণায় সেই আশঙ্কা নাকচ করে দিয়ে ইউসিএলের জেমস কির্কব্রাইড দাবি করেছেন, বিড়াল পুষলেই মালিকের মধ্যে মানসিক সমস্যার প্রবণতা বাড়বে এমনটা নয়। তবে বিড়ালের রোগগুলো সম্বন্ধে সব সময়ই সতর্ক থাকতে হবে আমাদের। -আনন্দবাজার পত্রিকা

মানবকণ্ঠ/এসএস