মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে পুলিশের উপর মহলে চিঠি

ভিভিআইপি প্রটোকলের জন্য সোয়া ঘণ্টা সড়ক বন্ধ রাখার কারণ জানতে চেয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে পুলিশের উচ্চ পর্যায়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। এ কারণে ১৪ জন সচিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে চলা একনেক বৈঠকে যোগ দিতে পারেননি। বিষয়টি জেনে প্রধানমন্ত্রী ক্ষুব্ধ হয়েছেন বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সাম্প্রতিক বাংলাদেশ সফরকালে তাকে প্রটোকল দিতে চলাচলের সোয়া ঘণ্টা আগেই পুলিশ গুরত্বপূর্ণ সড়ক বন্ধ করে দেয়। ওই সময় শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা কমিশনে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একনেক বৈঠক চলছিল। ভিভিআইপি প্রটোকলের মধ্যে সড়কে আটকা পড়ে ১৪ জন সচিব বৈঠকে যোগ দিতে পারেননি। সচিবদের অনুপস্থিতির কারণে নির্ধারিত সময়ে আলোচ্যসূচিগুলোর সিদ্ধান্ত নিতে নেয়া যায়নি। বৈঠকে তাদের দেরিতে উপস্থিতির জন্য প্রধানমন্ত্রী ক্ষুব্ধ হন।

এক সচিব প্রধানমন্ত্রীকে জানান, সফররত ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জিকে ভিভিআইপি প্রটোকল দিতে নির্ধারিত সময়ের সোয়া ঘণ্টা আগেই পুলিশ যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। যে কারণে তারা সড়কে আটকা পড়েন। বৈঠকে যোগ দিতে আসা রাস্তায় আটকে পড়া সচিবরা কর্তব্যরত পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। একনেক বৈঠকে যোগ দেয়ার বিষয়টিও গুরুত্বের সঙ্গে বলেছেন। তার পরেও পুলিশ সচিবদের গাড়ি ছাড়েনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সেদিন রাস্তায় আটকে থাকা এক সচিব মানবকণ্ঠকে বলেন, আমরা সরকারের সচিব জানার পরেও পুলিশ আমাদের যেতে দিল না। সচিবরা ভিভিআইপি নিরাপত্তার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে যাবে কেন? গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে যোগ দেয়ার বিষয়টি বলার পরেও আমাদের রাস্তায় বসে থাকতে হলো।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ভিভিআইপি প্রটোকলকে কেন্দ্র করে সোয়া ঘণ্টা আগে পুলিশের সড়ক বন্ধ করে দেয়ার কারণ জানতে চেয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে পুলিশের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ডিএমপিসহ ওপর মহলে চিঠি দেয়া হয়েছে।

শুধু তাই নয়, এ ঘটনার জের ধরেই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ভিভিআইপি চলাচলের জন্য সড়কে আলাদা একটা ভিআইপি লেন প্রস্তাব গত মন্ত্রিসভার বৈঠকে দেয়া হয়েছে। দুঃসহ যানজটের রাজধানীতে ভিভিআইপি আলাদা লেনের প্রস্তাবটি গণমাধ্যম ও সামাজিক মাধ্যমগুলোতে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বলছেন, রাজধানীজুড়ে আলাদা ভিভিআইপি লেন করার প্রস্তাব করা হয়নি। জরুরি ভিত্তিতে চলাচলের জন্য বঙ্গভবন থেকে গণভবন, সচিবালয় থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় পর্যন্ত সড়কের জন্য বলা হয়েছে।

এ ছাড়া রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন দিবসের অনুষ্ঠানে সচিবদের গণভবন ও বঙ্গভবনে যেতে হয়। তাদের গাড়ি নির্ধারিত একটি স্থানে রেখে হেঁটে অনুষ্ঠান স্থলে যেতে হচ্ছে। অথচ তাদের সামনে পুলিশসহ অন্য বাহিনী ও সংস্থার সহকারী কমিশনার পদমর্যাদার কর্মকর্তার গাড়িটিও অনুষ্ঠান স্থলে কাছাকাছি চলে যান। স্ত্রী ও সন্তানদের সঙ্গে নেয়া সচিবদের এই দৃশ্য বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হয়।

মানবকণ্ঠ/এসএস