ভেনেজুয়েলায় গ্রামবাসীদের ওপর সেনাবাহিনীর গুলি, নিহত ২

ভেনেজুয়েলার দক্ষিণাঞ্চলীয় ব্রাজিল সীমান্তবর্তী গ্রাম কুমারাকাপেতে সেনাবাহিনীর গুলিতে ২ জন নিহত হয়েছেন। শুক্রবার ঘটা এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ১৫ জন। এমনটি জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রাজিল সীমান্তের দিকে যাওয়ার সময় কুমারাকাপেতে গ্রামের একটি আদিবাসী সম্প্রদায় ভেনেজুয়েলার সেনাবহরে বাধা দেয়। আদিবাসী সম্প্রদায়ের বিশ্বাস ছিল যে ত্রাণ বন্ধ করার জন্যই ভেনেজুয়েলা সেনাবাহিনী ব্রাজিল সীমান্তের দিকে এগোচ্ছে। আর তাই তারা সেনাবাহিনীকে রুখতে চেষ্টা করে। পরে সেনাবাহিনী ওই গ্রামে ঢুকে গ্রামবাসীদের ওপর গুলি চালালে সেখানে এক যুগল নিহত হন।

এই বিষয়ে আদিবাসী সম্প্রদায়ের নেতা ফারনান্দেজ বলেন, আমি মানবিক ত্রাণকে সমর্থন দিয়ে তাদের থামিয়ে দিয়েছিলাম পরে তারা গ্রামে প্রবেশ করে এবং আমাদের ওপর হামলা চালায় । 

উল্লেখ্য, অর্থনৈতিক সঙ্কটে ভোগা দেশ ভেনেজুয়েলায় জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর থেকেই দেশটিতে ব্যাপকভাবে চলছে সরকারবিরোধী আন্দোলন। একদিকে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট শপথ নিয়ে নিজেকে বৈধ দাবি করছেন, অন্যদিকে বিরোধী দলীয় নেতা তাকে অবৈধ উল্লেখ করে নিজেকেই অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করে বসে আছেন। আর এ ইস্যুতেই যুক্তরাষ্ট্রসহ বিদেশি পক্ষগুলোর সরাসরি হস্তক্ষেপ দেশটিতে উত্তেজনা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। বিরোধী দলের নেতা হুয়ান গুইদোকে সমর্থন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদেশগুলো। পাশাপাশি অর্থনৈতিক সঙ্কটে ভোগা ভেনেজুয়েলার জনগণের জন্য ত্রাণও পাঠাচ্ছে তারা। তবে রাশিয়া, চীনসহ আরও কয়েকটি দেশ নিকোলাস মাদুরোর প্রতি নিজেদের সমর্থন জানিয়ে ভেনেজুয়েলায় মার্কিন হস্তক্ষেপের নিন্দা করেছে। জানুয়ারির নির্বাচনে জিতে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হিসেবে মাদুরো শপথ নিলেও নির্বাচনকে প্রথম থেকেই অবৈধ দাবি করছে বিরোধী দলগুলো। কারণ বেশিরভাগ বিরোধী দলীয় নেতা ওই সময় হয় কারাগারে থাকার কারণে বা নির্বাচন বয়কটের মাধ্যমে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি।

মানবকণ্ঠ/এআর