ভারতে অতিবৃষ্টি ও ভূমিধসে ২৬ জনের মৃত্যু

ভারতে অতিবৃষ্টি ও ভূমিধসে ২৬ জনের মৃত্যু

ভারতের কেরালা রাজ্যে কয়েকদিনের ভারী বৃষ্টি ও ভূমিধসে অন্তত ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে শুধুমাত্র ইদুক্কি জেলাতেই ভূমিধসে প্রাণ হারিয়েছেন ১১ জন। বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় মৃতের সংখ্যা আরো বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

উদুক্কি, ওয়ানাড়, এর্নাকুলামসহ রাজ্যের অধিকাংশ জেলায় এখনও ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হচ্ছে। অবিরাম বর্ষণের ফলে বেড়েছে পেরিয়ার নদীর পানি। ফলে এর আশপাশের এলাকায় তৃতীয় স্তরের রেড এলার্ট জারি করেছে রাজ্য সরকার। কেরালার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কে জে আলফোন্সসবে একে ৫০ বছরের ভয়াবহতম বন্যা বলে দাবি করেছেন।

এদিকে কেরালায় ইদুক্কি বাধ এলাকায় (ওয়াটার রিজার্ভার) তৃতীয় স্তরের রেড এলার্ট জারি করে গত ২৬ বছরের মধ্যে এই প্রথম সেটির ফটক খুলে দেয়া হয়েছে। রিজার্ভারের পানি লেভেল ২৪০০ ফুট অতিক্রম করার বৃহস্পতিবার সেটির তিনটি ফটক খুলে দেয়া হয়। যে কারণে ‘পেরিয়া’ নদীর পানি আকস্মিকভাবে বেড়ে গিয়ে দুকূল প্লাবিত হতে পারে।

ইতিমধ্যে বন্যায় ডুবে গেছে বহু ঘর-বাড়ি। কয়েক হাজার বন্যা কবলিত মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন নিরাপদ আশ্রয়ে। কেরালা আবহাওয়া অফিস থেকে শুক্রবারও ভারী বর্ষণের পূর্বাভাস দেয়ায় এদিন ইদুক্কি, ওয়ায়ানাদ, এরনাকুলাম ও পাথানামথিত্তা জেলার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কুন্নুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সব পরীক্ষা স্থগিত রাখা হয়েছে।

বন্যা কবলতিদের উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতায় অভিযান শুরু করেছে ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্সের (এনডিআরএফ) পাশাপাশি দেশটির সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী । প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রো মোদী কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ানের সঙ্গে কথা বলে সব রকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রীও সংশ্লিষ্ট সব দফতরের সঙ্গে ঘনঘন বৈঠক করে পরিস্থিতি পর্যালোচনা এবং তার মোকাবেলায় ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দিচ্ছেন।

মানবকণ্ঠ/এসএ/এসএস