বিয়েতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের পুরুষাঙ্গ কেটে দিল প্রেমিকা

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের পুরুষাঙ্গ কেটে দিল প্রেমিকা

মোবাইল ফোনে পরিচয়। দীর্ঘদিন চলে মন দেয়া-নেয়া। কিন্তু প্রেমিকাকে বিয়ে করতে নারাজ প্রেমিক। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ব্লেড দিয়ে প্রেমিকের পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছে প্রেমিকা। গুরুতর অবস্থায় প্রেমিককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার চাকসা পালপাড়া গ্রামে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চাকসা পালপাড়া গ্রামের এক তরুণীর (১৮) সঙ্গে উপজেলার চরপাড়া গ্রামের নুর মোহাম্মদ মিয়ার ছেলে আতিকুল ইসলামের (২২) মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ভালোবাসার একপর্যায়ে ভাটা পড়ে তাদের সম্পর্কে। কিন্তু তরুণী প্রেমিক আতিকুলকে তবুও মুঠোফোনে বিয়ের চাপ দেয়। পারিবারিক সমস্যা জানিয়ে আতিকুল প্রেমিকাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। কিন্তু তা মানতে নারাজ তরুণী।

গত বুধবার চাকসা পালপাড়া গ্রামে ফুফা নূরাল ফকিরের বাড়িতে পালিয়ে আশ্রয় নেয় আতিকুল। বৃহস্পতিবার রাতে তরুণী জানতে পারে আতিকুল তার বাড়ির পাশে ফুফার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। সুযোগ বুঝে মুঠোফোনে আতিকুলকে বারবার দেখা করতে বলে এবং খুদে বার্তা পাঠায় তরুণী। কিন্তু এতে রাজি না হওয়ায় মধ্যরাতে আতিকুলের সঙ্গে দেখা করতে ওই বাড়িতে যায় সে। সেখানে গিয়ে বিয়ের দাবি জানায় তরুণী। কিন্তু তাতে রাজি না হওয়ায় ব্লেড দিয়ে আতিকুলের পুরুষাঙ্গ কেটে দেয় সে। এ সময় তার চিৎকারে বাড়ির লোকজন ছুটে এলে পালিয়ে যায় তরুণী। গুরুতর অবস্থায় আতিকুলকে বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু বক্কর ছিদ্দিক বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। গুরুতর অবস্থায় আতিকুলকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আতিকুলের বড় ভাই মো. নাসির উদ্দিন বলেন, আতিকুলের অবস্থা গুরুতর। তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। প্রচুর রক্তক্ষরণে অজ্ঞান হয়ে পড়েছে আতিকুল। আমার ভাইয়ের ওপর পরিকল্পিত এ হামলার ঘটনায় মামলা করব। আমার ভাই নিরপরাধ। জোর করে তাকে বিয়ে করতে না পেরে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তরুণী ও তার পরিবারের লোকজন।

মানবকণ্ঠ/এসএ