বিজয় দিবসের আগেই অতিরিক্ত সচিব হচ্ছেন ১৬৫ কর্মকর্তা

প্রশাসনে অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি হচ্ছে। ভাগ্য খুলছে ১৬৫ কর্মকর্তার। বিজয় দিবসের আগেই এ পদোন্নতির আদেশ জারি হবে বলে জানা গেছে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, যুগ্মসচিব থেকে অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতির জন্য ১৬৫ কর্মকর্তার নামের সুপারিশ চূড়ান্ত করেছে সুপিরিয়র সিলেশন বোর্ড (এসএসবি)। এর সার-সংক্ষেপ তৈরি করে প্রধানমন্ত্রীর

অনুমোদনের জন্য তার কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী কম্বোডিয়া সফর শেষে দেশে ফেরার পর সার-সংক্ষেপ অনুমোদন হতে পারে এমন ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খান এ প্রসঙ্গে মানবকণ্ঠকে বলেন, ‘বিজয় দিবসের আগেই অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতির আদেশ জারি হতে পারে।’ একাধিক সূত্রে জানা গেছে, নবম ব্যাচের কর্মকর্তাদের নিয়মিত পদোন্নতি দেয়া হলেও তালিকায় তাদের সংখ্যা খুবই কম। অন্যদিকে যোগ্যতা অর্জনের পরেও এ দফায় আমলে নেয়া হয়নি দশম ব্যাচের কর্মকর্তাদের। অথচ প্রশাসন ছাড়া অন্যান্য ক্যাডারের এমন কয়েক কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেয়া হচ্ছে, যারা ১০ম ব্যাচের কর্মকর্তাদের পরে উপসচিব পদে পদোন্নতি পেয়েছিলেন। এ নিয়ে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে চলছে চাপা ক্ষোভ ও অসন্তোষ।

সূত্র জানায়, চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহেই অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতিযোগ্য ১৭৫ জনের তালিকা চূড়ান্ত করে এসএসবি। নিয়মিত ব্যাচ হিসেবে ৯ম ব্যাচের ৪৫ কর্মকর্তার নাম এ তালিকায় রয়েছে।

এ ছাড়া লেফটআউট হিসেবে ওই তালিকায় স্থান পান বিসিএস ১৯৮২ (বিশেষ), ৮৪, ৮৫ ও ৮৬ ব্যাচের কয়েকজন
কর্মকর্তা। তারও আগে অক্টোবরের প্রথমদিকে নবম ব্যাচের সঙ্গে দশম ব্যাচের কর্মকর্তাদের পদোন্নতি দিতে এসএসবিকে পরামর্শ দিয়েছিলেন জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। কিন্তু তা উপেক্ষা করায় এক ধরনের জটিলতার সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে তালিকায় অনুমোদন না দিয়ে ফেরত পাঠান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী। পরে ওই তালিকা (১৭৫জন) থেকে ১০ জনের নাম বাদ দিয়ে ১৬৫ কর্মকর্তার তালিকা চূড়ান্ত করা হয়।

ওই তালিকা গত বুধবার জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর দফতরে যান এসএসবির সভাপতি মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম, সদস্য সচিব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (এপিডি) শেখ ইউসুফ হারুনসহ সংশ্লিষ্টরা। এ তালিকা অনুমোদন দেয়া হয় বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এ প্রসঙ্গে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (এপিডি) শেখ ইউসুফ হারুন বলেন, ‘অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতির কাজ চলমান রয়েছে। আগামী সপ্তাহে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে।’ কমবেশি দেড়শ’ কর্মকর্তাকে এ দফায় পদোন্নতি দেয়া হতে পারে বলেও ইঙ্গিত দেন ইউসুফ হারুন।

সচিবালয়ের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছে, পদোন্নতি বিলম্বিত হওয়ায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে এক ধরনের ক্ষোভ-হতাশা বিরাজ করছে। বিশেষ করে এর আগে পদোন্নতিবঞ্চিত সিনিয়র ব্যাচের কর্মকর্তাদের দুশ্চিন্তার শেষ নেই। তাদের শঙ্কা যদি এসএসবি তাদের যোগ্য মনে করে থাকে তাহলে পদোন্নতি যত বিলম্বিত করা হবে তত তাদের প্রাপ্য হক থেকে বঞ্চিত করা হবে। এ ছাড়া অনেকে অবসরে যাওয়ার পথে। যারা এক সময় সচিব হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন, এখন তারা অতিরিক্ত সচিবও হতে পারছেন না।

পদোন্নতিতে বিবেচনা না করায় ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে দশম ব্যাচের কর্মকর্তাদের মধ্যে। ব্যাচের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ‘অতিরিক্ত সচিব হওয়ার সব যোগ্যতা অর্জনের পরও পদোন্নতির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। অথচ আমাদের পরে উপসচিব হয়েছেন অন্য ক্যাডারের এমন কয়েক কর্মকর্তাকেও পদোন্নতি দেয়া হচ্ছে। পদ ছাড়াই যেহেতু পদোন্নতি দেয়া হচ্ছে তাহলে ব্যাচ আমলে নিতে সমস্যা কোথায়?’ প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন তারা। কারণ নবম ব্যাচের সঙ্গে তারাও যুগ্ম সচিব হয়েছিলেন।

মানবকণ্ঠ/আরএ