বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক সোমবার রাতে

বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক ডেকেছেন চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। সোমবার রাত সাড়ে ৮টায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে এ বৈঠক হবে।

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক ব্রিফিংয়ে বলেন, আগামীকাল (সোমবার) ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক ডেকেছেন। সোমবারই তিনি নিজের কার্যালয়ে প্রথম অফিস করবেন।

চিকিৎসার জন্য তিন মাস লন্ডনে কাটিয়ে গত ১৮ অক্টোবর দেশে ফেরেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। এরপর এই প্রথম তিনি স্থায়ী কমিটির সঙ্গে বসতে যাচ্ছেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার রূপরেখা চূড়ান্তসহ পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবেন খালেদা জিয়া। তিনি রাজনীতি ও দল গোছানোর কাজে মনোনিবেশের প্রথমেই দেশের সর্বশেষ রাজনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে অবহিত হবেন। তারপর নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা নিয়ে আলোচনা করবেন।

উল্লেখ্য, লন্ডন যাওয়ার আগেই সহায়ক সরকারের রূপরেখার একটি খসড়া তৈরি ছিল। ওই খসড়ার ব্যাপারে লন্ডনে অবস্থানরত দলের আরেক শীর্ষ নেতা সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন। তার সঙ্গে মতবিনিময়ের আলোকেই নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা চূড়ান্ত করবে স্থায়ী কমিটি।

সংবাদ সম্মেলনে বর্তমান সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করছে বলে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মেধাবীদের রেখে ঘুষবাণিজ্যের মাধ্যমে দলীয় ক্যাডারদের নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। আবার পরীক্ষায় পাস করিয়ে দিতে বোর্ড থেকে নির্দেশনা দিয়ে দেয়া হয় শিক্ষকদের। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রসংগঠনের অস্ত্রবাজি ও দখলবাজিতে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা মুমূর্ষু হয়ে পড়েছে। এ ছাড়া প্রশ্নপত্র ফাঁস থেকে শুরু করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নৈতিকতা ধ্বংস করার সব প্রচেষ্টাও অব্যাহত রেখেছে এ সরকার।

রিজভী প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টার বক্তব্যেরও সমালোচনা করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও উপদেষ্টাদের লাগামহীন বক্তব্য দিতে জুড়ি নেই। মনে হয়, তারা আকস্মিকভাবে আসমানি বক্তব্য রাখছেন।

বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার রঙিন স্বপ্ন দেখছে— আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করেন রিজভী।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ