বাসের আগাম টিকিট ১৮ আগস্ট থেকে

ঈদুল আজহা উপলক্ষে দূরপাল্লার বাসের অগ্রিম টিকিট দেয়া হবে ১৮ আগস্ট শুক্রবার থেকে। ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ছাড়ার দিন এখনো ঠিক হয়নি। বাংলাদেশ বাস ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ফারুক তালুকদার বলেন, এবারের ঈদের অগ্রিম টিকিট ১৮ আগস্ট সকাল ছয়টা থেকে নিজ নিজ বাসের কাউন্টারের নির্ধারিত স্থানে বিক্রি হবে।

ট্রেনের অগ্রিম টিকিটের বিষয়ে জানতে চাইলে রেলমন্ত্রী মজিবুল হক বলেন, এখনো ট্রেনের টিকিট ছাড়ার দিন ঠিক হয়নি। এ বিষয়ে সভা করে আপনাদের জানানো হবে।

কোন দিন টিকিটের চাহিদা বেশি থাকবে জানতে চাইলে হানিফ এন্টারপ্রাইজের মহাব্যবস্থাপক আবদুস সামাদ বলেন, এবার আমরা ২ সেপ্টেম্বরকে ঈদ ধরে ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি করব। সে ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি চাপ থাকবে ৩০ ও ৩১ আগস্ট। এই দুই দিনে সবচেয়ে বেশি মানুষ ঢাকা ছাড়বেন বলে মনে করেন তিনি। ঈদের আগে শেষ কর্মদিবস হচ্ছে ৩১ আগস্ট। কেউ কেউ এই দিন ছুটি নিয়ে এক দিন আগেই, অর্থাৎ ৩০ আগস্ট ঢাকা ছেড়ে চলে যাবেন। কেউ কেউ ৩১ আগস্ট অফিস করেই ঢাকা ছাড়বেন। তাই এই দুই দিন সবচেয়ে বেশি চাপ থাকবে।

বাস মালিকদের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, এবারের ঈদে বাসের টিকিটের চাহিদা কম থাকবে। বিভিন্ন স্থানে রাস্তা খারাপ হওয়ার কারণে বাস সময়মতো গন্তব্যে যেতে পারছে না। ঈদের অনেক আগে থেকেই এই অবস্থা চলছে। যে বাস ১২ ঘণ্টায় ঢাকা আসার কথা, সেই বাস ২৫ থেকে ৩০ ঘণ্টায়ও ঢাকা আসতে পারছে না। তাই এবার তারাও বাসের সংখ্যা কমিয়ে দিয়েছে। এ জন্য এবার ট্রেনের টিকিটে বেশি চাপ থাকবে বলে মনে করেন একাধিক বাস মালিক।

এদিকে ঈদে এসি বাসের সংখ্যা কম হলেও এর চাহিদা বেশি থাকে বলে জানিয়েছে বাস ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন। রাস্তার ধুলোবালি ও দীর্ঘ যানজটের কারণে যাত্রীরা মূলত এসি বাসের অগ্রিম টিকিটের প্রতিই আগ্রহী থাকেন। এ সুযোগে গত ঈদেও দ্বিগুণ থেকে তিন গুণ বেশি দামে বিক্রি হয়েছে এসি বাসের টিকিট।

তবে টিকিট অগ্রিম ছাড়া হলেও গত ঈদে ভিড় না থাকার কারণ জানতে চাইলে কাউন্টারের বিক্রেতারা বলেন, এসি টিকিট দেয়া হয় সম্পর্কের ভিত্তিতে। এছাড়া অনেকেই অনলাইনে কেনার কাজটা সেরে ফেলেন। অবশ্য ঈদের সময় বাসের সংখ্যা বাড়ানো হয়। রাস্তায় যানজট না থাকলে কোনোকিছুতে সমস্যা হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ