বাড্ডায় আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা : ভিডিও ফুটেজে দু’জন শনাক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক
রাজধানীর বাড্ডায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আলীকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার দুপুরে জুমার নামাজ শেষে উত্তর বাড্ডার আলীর মোড়ে বায়তুস সালাম জামে মসজিদের সামনে এ ঘটনা ঘটে।
হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়া জুয়েল ও মিরাজুল নামে দু’জনকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। ঘটনাস্থলের পাশের ভবনে থাকা সিসিটিভি ফুটেজ দেখে তাদের শনাক্ত করা হয়।
এদিকে বেশ কিছু বিষয়কে সামনে রেখে এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তবে নিহতের পরিবারের দাবি এলাকার ডিশ ব্যবসা নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।
বাড্ডা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, ফরহাদ আলী জুমার নামাজ শেষে মসজিদ থেকে বের হচ্ছিলেন। তখনই গুলির ঘটনা ঘটে। পরে তাকে দ্রুত উদ্ধার করে ইউনাইটেড হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী একটি ভবনের সিসিটিভি ক্যামেরায় দু’জন হামলাকারীকে দেখা গেছে। ঘটনাস্থলের আশপাশে থাকা লোকজনও দু’জনকে পালিয়ে যেতেও দেখেছে। স্থানীয়দের মাধ্যমে তাদের নাম জানা গেছে। তারা হলেন জুয়েল ও মিনহাজ। সিসিটিভির ফুটেজে দেখা গেছে, দু’ যুবক দৌড়ে পালাচ্ছে। সাদা টি-শার্ট পরা জুয়েল সামনে এবং লাল টি-শার্ট গায়ে মিরাজুল পেছনে ছিল। এদের মধ্যে জুয়েলের হাতে ছোট আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, দু’জনকেই ঘটনার বেশ কিছুদিন আগে থেকে বাড্ডা এলাকায় ঘোরাঘুরি করতে দেখা গেছে। তবে তারা কেউই বাড্ডার বাসিন্দা নয়।
এদিকে বেশ কিছু কারণকে সামনে রেখে এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। এসব বিষয়ের মধ্যে রয়েছে স্থানীয় অটো ও ভাসমান ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রণ, ডিশ ব্যবসা নিয়ে দ্বন্দ্ব ও আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর হিসেবে ফরহাদ আলীর মনোনয়ন চাওয়া। এ ছাড়া আরো বেশ কিছু বিষয় রয়েছে বলে জানিয়েছেন তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
তবে নিহতের পরিবারের দাবি ডিশ ব্যবসা নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে খুন করা হয়েছে ফরহাদকে। নিহতের ভাগ্নে হীরা বলেন, আমরা সন্দেহ করছি ডিশ ব্যবসার কারণে মামাকে হত্যা করা হয়েছে।
বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী ওয়াজেদ আলী জানান, শনাক্ত হওয়া দু’জনকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে। তাদের গ্রেফতার করা গেলেই হত্যাকাণ্ডের পেছনে কি কারণ রয়েছে তা জানা যাবে। হত্যাকাণ্ডের পর আমরা খোঁজ-খবর নিচ্ছি। তবে তদন্তের স্বার্থে সবকিছু বলা যাচ্ছে না বলে জানান তিনি।