বাংলাদেশ দূতাবাস, এথেন্সের জনপ্রশাসন পদক প্রাপ্তি উপলক্ষে সংবর্ধনা

আনন্দ ও উৎসবের মধ্য দিয়ে গ্রিসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা উদযাপন করল বাংলাদেশ দূতাবাস, এথেন্স-এর ‘জনপ্রশাসন পদক-২০১৮’ প্রাপ্তি। এ উপলক্ষে ২৩ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের কার্যকরী পরিষদ সর্বস্তরের প্রবাসীদের সঙ্গে নিয়ে একটি বিশেষ সংবর্ধনার আয়োজন করে। এথেন্সের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত ত্রিয়ানন হলে অনুষ্ঠিত এই সংবর্ধনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গ্রিসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. জসীম উদ্দিন।

বাংলাদেশ দূতাবাস, এথেন্স-এর উদ্ভাবনী উদ্যোগের স্বীকৃতি হিসেবে এ বছর বাংলাদেশ দূতাবাস, এথেন্সকে জনপ্রশাসন পদক-২০১৮ প্রদান করে বাংলাদেশ সরকার। ২৩ জুলাই জনপ্রশাসন দিবসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওসমানী মিলনায়তনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে গ্রিসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের হাতে এই পদক তুলে দেন। এই পুরস্কার প্রাপ্তি গ্রিস প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে বিপুল উচ্ছ্বাস এবং আনন্দ বয়ে আনে। গ্রিস প্রবাসীরা এ উপলক্ষে আয়োজন করে বিশেষ সংবর্ধনা অনুষ্ঠান।

 

সর্বস্তরের প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের পক্ষ থেকে আয়োজিত এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে একটি আনন্দঘন এবং আবেগপূর্ণ পরিবেশের সৃষ্টি হয়। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যেসব প্রবাসী বাংলাদেশি সংগঠন এবং ব্যক্তি দূতাবাসের সঙ্গে একযোগে কাজ করেছেন, তারা এদিন মিলনায়তনে উপস্থিত থেকে রাষ্ট্রদূত এবং দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে আনন্দ ভাগ করে নেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের নির্বাচিত সভাপতি হাজী আব্দুল কুদ্দুস। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সিনিয়র সহসভাপতি হাজী আহসান উল্লাহ হাসান। বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সাধারণ সম্পাদক হাজী আব্দুল খালেক মাতবরসহ কার্যকরী পরিষদের সদস্যরা এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সভাপতি শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন এবং রাষ্ট্রদূতের উদ্দেশ্যে একটি মানপত্র পাঠ করেন। কুদ্দুস তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, দূতাবাসের এই অসামান্য অর্জনে প্রবাসীরা আনন্দে উদ্বেলিত। তিনি রাষ্ট্রদূতসহ দূতাবাস পরিবারের সবাইকে সর্বস্তরের প্রবাসীদের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ দূতাবাস, এথেন্স-এর জনপ্রশাসন পদক-২০১৮ প্রাপ্তি গ্রিস প্রবাসী প্রতিটি বাংলাদেশি নাগরিককে গর্বিত করেছে। প্রতিটি গ্রিস প্রবাসী বাংলাদেশি এই আনন্দের ভাগীদার। এই পুরস্কার তাদেরকে দূতাবাসের সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করে যেতে অনুপ্রাণিত করেছে।

তিনি দূতাবাসের সব ভবিষ্যত কর্মকাণ্ডে সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন। বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রদূতের হাতে বিশেষ ক্রেস্ট তুলে দেন বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের সভাপতি। এরপর বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিসের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয় দূতাবাসের কাউন্সেলর (শ্রম) ড. সৈয়দা ফারহানা নূর চৌধুরী এবং প্রথম সচিব সুজন দেবনাথকে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি গ্রিসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. জসীম উদ্দিন জনপ্রশাসন পদক-২০১৮ প্রবাসী বাংলাদেশিদের উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করে তার বক্তব্য শুরু করেন। তিনি বলেন, এই বছর আসলে দূতাবাস দুটি পুরস্কার পেয়েছে। ২৩ জুলাই তারিখে প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে জনপ্রশাসন পুরস্কার আর তার ঠিক দুই মাস পরে ২৩ সেপ্টেম্বর প্রবাসী ভাই বোনদের কাছ থেকে এই পুরস্কার।

তিনি বলেন, এর কৃতিত্ব দূতাবাস এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের। এই পুরস্কার আমরা যারা এখন দূতাবাসে কাজ করছি এবং আমাদের পরে যারা আসবে তাদের মধ্যকার এক যোগসূত্র। এই পুরস্কার পাওয়ার ফলে এখন আর আমাদের পেছনে যাওয়ার সুযোগ নেই। পথ একটাই। সেটা সামনে যাওয়ার পথ।

তিনি প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করতে প্রবাসীদেও প্রতি আহ্বান জানান। হল রুমে উপস্থিত বিপুল সংখ্যক প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রদূত চার ধরনের দায়িত্ব এবং কাজের কথা বলেন- এক, ভাষার জন্য প্রবাসীরা; দুই, মহান মুক্তিযুদ্ধের সম্মানে প্রবাসীরা; তিন, উন্নয়নে প্রবাসীরা; চার, বাংলাদেশের ইতিবাচক ভাবমূর্তি সৃষ্টি তথা বাংলাদেশ ব্র্যান্ডিং-এ প্রবাসীরা। রাষ্ট্রদূত এই পুরস্কার প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানান। তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রবাসী কল্যাণ এবং বাংলাদেশ ব্র্যান্ড সৃষ্টিতে বাংলাদেশ দূতাবাস এথেন্সের বিভিন্ন উদ্ভাবনী উদ্যোগের ওপর একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক রাষ্ট্রদূতের হাতে জনপ্রশাসন পদক-২০১৮ তুলে দেয়ার ভিডিও চিত্রও প্রদর্শন করা হয়। প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধাসহ প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভিন্ন সংগঠন রাষ্ট্রদূতকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান।

অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূতের সহধর্মিনী মিসেস শায়লা পারভীনসহ দূতাবাস পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে দূতাবাসের পক্ষ থেকে অনুভূতি ব্যক্ত করেন দূতাবাসের কাউন্সেলর (শ্রম) ড. সৈয়দা ফারহানা নূর চৌধুরী এবং প্রথম সচিব সুজন দেবনাথ। অনুষ্ঠানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ব্যবসায়ী সংগঠন, স্কুলের শিক্ষিকা, নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধিসহ জেলা ও বিভাগভিত্তিক আঞ্চলিক সংগঠনের নেতারা বক্তব্য প্রদান করেন।

অনুষ্ঠান শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে স্থানীয় দোয়েল সাংস্কৃতিক সংগঠনের শিল্পীরা। বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান উপলক্ষে এথেন্সের ত্রিয়ানন হলে এক অভূতপূর্ব আনন্দ ও উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ