বসুন্ধরা কিংসের কাছে মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রের হার

বসুন্ধরা কিংসের কাছে মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রের হার

বিপিএল ফুটবল লীগের ম্যাচে গোপালগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার হোম ভেন্যুতে বসুন্ধরা কিংসের কাছে ৩-১ গোলে হেরেছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র। গোপালগঞ্জ শেখ ফজলুল হক মণি স্টেডিয়ামে শনিবার বেলা ৩ টায় অনুষ্ঠিত গোপালগঞ্জ ভেন্যুর দ্বিতীয় খেলায় নিজেদের হোম ভেন্যুতে মুক্তিযোদ্ধাকে পয়েন্ট হেরে মাঠ ছাড়তে হলো। তবে, খেলার প্রথম থেকে উভয় আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ করে খেলে। খেলার প্রায় ৭০ মিনিট পর্যগন্ত ১-১ গোলে সমতা থাকলে খেলার শেষ ২০ মিনিটে বসুন্ধরা কিংস আক্রমণে গতি বাড়িয়ে আরো ২ গোল আদায় করে দেয়। তবে, বসুন্ধরা কিংসের ৯১ নম্বর জার্সিধারী মার্কোস ভিনিসিয়াস পেলাল্টি মিস না করলে গোল ব্যবধান ৪-১ হতে পারতো।

নবম মিনিটে বসুন্ধরা পেয়ে যায় প্রথম গোল। গোলের কারিগর সেই ২৬ নম্বর জার্সিধারী ডেনিয়েল কলিনড্রেস। তার কর্নার থেকে ছোট্ট ডিবক্সে জটলায় বল পেয়ে যান ২ নম্বর জার্সিধারী সুশান্ত ত্রিপুরা। প্লেসিং শটে বল জালে জড়াতে ভুল করেননি এই ডিফেন্ডার।

খেলার ১৫ মিনিটে বসুন্ধরা কিংসের ৯১ নম্বর জার্সিধারী ব্রাজিলিয়ান ফরোযার্ড মার্কোস ভিনিসিয়াস মুক্তিযোদ্ধার গোল রক্ষক আনিচুর রহমান জিকো একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন। ১৭ তম মিনিটে পেনাল্টি পায় মুক্তিযোদ্ধা। ১০ নম্বর জার্সিধারী বাল্লো ফামোসাকে গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। ঠাণ্ডা মাথায় বল জালে জড়িয়ে সমতা ফেরান মুক্তিযোদ্ধার জাপানী ৮৮ নম্বর জার্সিধারী ইউসুকো কাতো। ১৯ মিনিটে ম্যাচে ফিরে সমতা।

খেলার ৩১ মিনিটে আইভোরিকোস্টের ১০ নম্বর জার্সিধারী বাল্লো ফামুসার দূদান্ত শট বসুন্ধরা কিংসের ক্রস বারে লেগে ফিরে আসলে গোলরক্ষক আনিচুর রহমান জিকো কর্ণারের বিনিময়ে গোল ঠেকিয়ে দেয়। ভাগ্য সহায় হলে খেলার ৩১ মিনিটেই ২-১ গোলে এগিয়ে যেতে পারতো মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। খেলার ৪০ মিনিটে পেলান্টি থেকে গোল মিস করে বসুন্ধরা কিংসের ৯১ নম্বর জার্সিধারী ব্রাজিলিয়ান ফরোযার্ড মার্কোস ভিনিসিয়াস। পেলান্টি মিস না করলে খেলার ৪০ মিনিটেই বসুন্ধরা কিংসও ২-১ গোলে এগিয়ে যেতে পারতো।

বিরতির আগে ম্যাচে সমতা ছিল ১-১ গোলে। ম্যাচের ৭১ মিনিটে ডিবক্সের বাম প্রান্ত দিয়ে ৯১ নম্বর জার্সিধারী ব্রাজিলিয়ান ফরোযার্ড মার্কোস ভিনিসিয়াসের বাড়ানো বলে নেয়া শটে লক্ষ্যভেদ মতিন মিয়ার। দলকে এগিয়ে দেন ২-১ গোলে।

৭৫ মিনিটে ডি বক্সের সামান্য বাইরে কলিনড্রেস ফাউলের শিকার হলে ফ্রিকিক পায় বসুন্ধরা। অসাধারণ ফ্রিকিকে বল জালে জড়ান কলিনড্রেস। সরাসরি ফ্রি-কিক থেকে দানিয়েল কলিন্দ্রেস গোল করে দলকে ৩-১ গোলে এগিয়ে দেন। তাঁর নামে ওঠা গ্যালারির স্লোগান গর্জনে পরিণত হয়েছিল তখন।

বসুন্ধরা কিংস এর প্রধান কোচ অস্কার ব্রুজোন বলেন, মার্কোস ভিনিয়াস ছন্দে ছিলো না। ওকে গোলে ফেরাতে নিতে দেয়া হয় পেনাল্টি। কিন্তু মিস করলো এটাও। আশা করছি দ্রুত সে গোলে ফিরবে। আর দলীয় পারর্ফম্যান্সে আমি খুশি।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রের প্রধান কোচ মো. আব্দুল কাইয়ূম সেন্টু বলেন, আমরা আসলে ডেড বল সিচুয়েশনে হেরে গেছি। ওরা কর্ণার আর ফ্রি কিক থেকে গোল করেছে। তবে, আমি হতাশ নই। আমরা ছন্দেই খেলতে পেরেছি। আশা করি আগামীতে গোপালগঞ্জবাসী ভাল খেলা উপহার দিতে পারবো।

মানবকণ্ঠ/এসএস