বর্ষসেরা মদ্রিচ

ক্রীড়া ডেস্ক :
ফিফার বর্ষসেরা হবে কে? গত এক দশক ধরে এমন প্রশ্নের উত্তরটা ছিল মুখস্থই বলে দিত ফুটবলপ্রেমীরাÑ হয় লিওনেল মেসি, নয় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। কিন্তু এবার আগেই বোঝা যাচ্ছিল, পুরনোদের সময় ফুরিয়ে এসেছে। আসছে নতুন কেউ। শেষতক হলোও তা। এ বছর ফিফার ‘বর্ষসেরা’ (দ্য বেস্ট ফিফা ফুটবল অ্যাওয়ার্ড) খেতাব উঠেছে ক্রোয়েশিয়ার লুকা মদ্রিচের হাতে।
গত ১০ বছর ফিফার বর্ষসেরা খেতাব নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নিয়েছেন রোনালদো এবং মেসি (সমান পাঁচবার করে)। এবারো এই খেতাব জয়ের দৌড়ে ছিলেন পর্তুগিজ যুবরাজ। আর তিনজনের সংক্ষিপ্ত তালিকাকেই ঠাঁই পাননি আর্জেন্টাইন ক্ষুদে জাদুকর। তার পরিবর্তে ওই তালিকায় শোভা পেয়েছিল লিভারপুলের মিসরীয় ফুটবল জাদুকর মোহাম্মদ সালাহ।
কিন্তু শেষ পর্যন্ত পুরস্কার জেতা হয়নি রোনালদো-সালাহর। তাদের পেছনে ফেলে সোমবার রাতে লন্ডনে বর্ষসেরার পুরস্কার উঁচিয়ে ধরে উল্লাসে মেতেছেন রিয়াল মাদ্রিদের আক্রমণাত্মক মিডফিল্ডার মদ্রিচ। ভেসেছেন প্রথমবারের মতো ফিফার শ্রেষ্ঠত্ব জয়ের আনন্দে। পেয়েছেন রাশিয়া বিশ্বকাপ আর ক্লাব ফুটবলে দারুণ এক বছর কাটানোর সবচেয়ে বড় উপহার।
গত মৌসুমে ইতিহাসের প্রথম ক্লাব হিসেবে রিয়ালের টানা তৃতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল মদ্রিচের। মাদ্রিদের ক্লাবটির হয়ে গত মৌসুমে জেতেন উয়েফা সুপার কাপ, স্প্যানিশ সুপার কাপ ও ক্লাব বিশ্বকাপ শিরোপা। আর রাশিয়া বিশ্বকাপেও তার অবদান ছিল অবিশ্বাস্য। নিজ ফুটবলের জ্ঞানের পাশাপাশি নিজ নেতৃত্ব গুণে দলকে তুলেছিলেন ফাইনালে। জিতেছিলেন গোল্ডেন বলও।
সবমিলে লন্ডনে ফিফার জমকালো আয়োজনে স্বপ্ন সত্য হওয়ায় খুশি মদ্রিচও, ‘এই অ্যাওয়ার্ড দেখাচ্ছে যে, আমরা সবাই কঠিন পরিশ্রম আর নিবেদন দিয়ে সেরা হতে পারি। কোনো কিছু অসম্ভব নয়। সব স্বপ্নই সত্যি হতে পারে।’ স্বপ্ন পূরণের পর তারকা মিডফিল্ডার কৃতজ্ঞ চিত্তে স্মরণ করলেন, এই পুরস্কারের পেছনে সতীর্থ আর কোচদের অবদানের কথা।