প্রেমের সম্পর্ক মেনে না নেয়ায় ইবি’র দুই শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

প্রেমের সম্পর্ক মেনে না নেয়ায় ইবি’র দুই শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

দীর্ঘদিনের প্রেম। কিন্তু মেনে নিতে নারাজ প্রেমিকার পরিবার। প্রেমিকাকে অনত্র বিয়ে দিতে উঠেপড়ে লাগে পরিবারের লোকজন। অবশেষে আত্মহত্যার পথই বেচে নিলো প্রেমিক আর প্রেমিকা। তারা দু’জনই ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) দুই শিক্ষার্থী ।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রথমে প্রেমিকা মুমতা হেনা (২৫) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। এই খবর জানার পরপরই রাতে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন প্রেমিক রোকনুজ্জমান (২৫)। নিহত দু’জনই বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী।

নিহতদের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মুমতা হেনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-হাদিস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. আশরাফুল ইসলামের মেয়ে। আর রোকনুজ্জামান কুষ্টিয়া শহরের পিয়ারাতলার একটি ছাত্রাবাসে থাকতেন। তার বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলায়। রোকনুজ্জামান ও মুমতা হেনার মধ্যে দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু বিষয়টি মেনে নেয়নি হেনার পরিবার। পরে হেনাকে বিয়ে দেয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঝিনাইদহ শহরের ঝিনুক টাওয়ারের পঞ্চম তলার একটি কক্ষে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে হেনা। রাত সাড়ে আটটার দিকে এই খবর শুনে রোকনুজ্জামান কুষ্টিয়া শহরের মতি মিয়া রেলগেটে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিলে ট্রেনে কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান জানান, রোকনুজ্জামান ও মুমতা হেনার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মনোমালিন্যের জের ধরে তারা আত্মহত্যা করেছেন।

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি শেখ এমদাদুল হক জানান, প্রেমঘটিত কারণে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছেন। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ রাতেই পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

কুষ্টিয়া পোড়াদহ জিআরপি থানার ওসি আব্দুল আজিজ জানান, পোড়াদাহ থেকে ছেড়ে যাওয়া গোয়ালন্দগামী শাটল ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন রোকনুজ্জামান। লাশ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এসএ/এসএস

Leave a Reply

Your email address will not be published.