প্রাথমিক স্কুলে ক্রীড়া ও সংগীতে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার বলেছেন, প্রাথমিক শিক্ষার মান এগিয়ে যাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের সঠিক শিক্ষাদানের মাধ্যমে তাদের মেধা ও শরীর গড়ে তুলতে হবে। শ্রেণিকক্ষকে আরো প্রাণবন্ত করে তুলতে দেশের প্রাথমিক স্কুলগুলোতে ক্রীড়া ও সংগীত বিষয়ের শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। গতকাল রোববার প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে ‘উদ্ভাবনী মেলা ও শোকেসিং ২০১৮’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে দুই দিনব্যাপী এই মেলায় ৩০টি প্রতিষ্ঠান তাদের উদ্ভাবনী আইডিয়া প্রদর্শন করেন।
তিনি বলেন, উদ্ভাবনী আইডিয়ার উদ্যোগে সারাদেশে মোবাইলের মাধ্যমে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রদান, মিডডে মিল চালু করা সম্ভব হয়েছে। বর্তমানে আরো বিভিন্ন ধরনের উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। এর মধ্যে পেনশন সহজীকরণ, ই-মনিটরিং, সিস্টেম, ডিপিই আ্যাকাউন্টিং সিস্টেম, ই-প্রাইমারি স্কুল সিস্টেম ও প্রাথমিক বিদ্যালয় ই-ব্যবস্থাপনা, টিচার রিক্রুটমেন্ট সিস্টেম, আমার স্বপ্ন আমার স্কুল, প্রয়াস, সততার দোকান, কর্মবীর অন্যতম।
মন্ত্রী আরো বলেন, উন্নয়নের সহাসড়কে ধাবমান বাংলাদেশের মানবসম্পদের কাক্সিক্ষত উন্নয়নে সব শিশুর জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করা সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার। এ লক্ষ্য নিয়ে স্ব স্ব স্থান থেকে সবাইকে চেষ্টার আহ্বান জানান তিনি।
অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আসিফ উজ জামান বলেন, আমাদের সব উদ্বোধনীর মধ্যে মিডডে মিল ও মোবাইলের মাধ্যমে উপবৃত্তি প্রদানে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। সবার কাছে গ্রহণযোগ্য পায় এমন আরো নতুন নতুন উদ্ভাবনী বা ভাবনা তৈরির আহ্বান জানান শিক্ষকদের।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আবু হেনা মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এফ এম মঞ্জুর কাদির, অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মো. রমজান আলী।
‘আপনার উদ্ভাবনী ধারণা শিক্ষায় আনবে সম্ভাবনা’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী এ উদ্ভাবন মেলায় মোট ৩০টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। মেলায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর এবং মাঠ পর্যায়ে সফল উদ্ভাবকরা তাদের উদ্ভাবনী আইডিয়া প্রদর্শন করেছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করে স্টলগুলো ঘুরে দেখেন।
উল্লেখ্য, দেশে জনপ্রসাশনে উদ্ভাবন চর্চাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার লক্ষ্যে সব মন্ত্রণালয়, অধিদফতর, সংস্থা, জেলা, উপজেলা পর্যায়ে কমিটি গঠনের জন্য ২০১৩ সালে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনের আলোকে ‘ইনোভেশন টিম’ গঠন করা হয়। এ পরিপ্রেক্ষিতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরেও গঠিত হয় ‘ইনোভেশন টিম’ এবং শুরু হয় প্রাথমিক শিক্ষায় উদ্ভাবনের যাত্রা। কম খরচে, দ্রুততার সঙ্গে জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছানোর মাধ্যমে জনপ্রত্যাশা পূরণের লক্ষ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের ইনোভেশন সেল নানাবিধ উদ্ভাবনী উদ্যোগ প্রশংসিত হয়েছে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে অধিদফতর পর্যায়ে ১৩টি, মাঠ পর্যায়ে ১৭২টি এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে মাঠ পর্যায়ে ২৩২টি উদ্যোগ বাস্তবায়িত হচ্ছে।