প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যে কারণে দেখা করলেন শাবানা

বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের নন্দিত অভিনেত্রী শাবানা। যার অভিনয়শৈলী জয় করে নিয়েছে অগণিত ভক্তের মন। ১৯৯৭ সালে শাবানা হঠাৎ চলচ্চিত্র-অঙ্গন থেকে বিদায় নেয়ার ঘোষণা দেন। এরপর তিনি আর নতুন কোনো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেননি।

সোমবার দুপুরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন এই নন্দিত নায়িকা। এ সময় তিনি অসুস্থ চিত্রপরিচালক আজিজুর রহমানের চিকিৎসার জন্য সাহায্য চান বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন নির্মাতা কবিরুল ইসলাম রানা।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎকালে অভিনেত্রী শাবানার সঙ্গে ছিলেন চিত্রনায়ক আলমগীর, পরিচালক মুশফিকুর রহমান গুলজার ও চিত্রনায়িকা মৌসুমী।

এ প্রসঙ্গে মুশফিকুর রহমান গুলজার তার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আজ আমার জীবনের একটি স্মরণীয় দিন। আমার পরম শ্রদ্ধেয় আপা জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করার মুহূর্তটির কথা কোনোদিন ভুলতে পারব না। শাবানা আপা, আলমগীর ভাই, ওয়াহিদ সাদিক ভাই, মৌসুমী এবং আমি গিয়েছিলাম আমাদের বড় বোনের সাথে দেখা করতে। শাবানা আপাকে দেখার সাথে সাথেই তিনি দু’হাত বাড়িয়ে দিয়ে তাকে বুকে টেনে নিলেন। শাবানা আপাও আবেগে আপ্লুত হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে ধরলেন। এ সময় মৌসুমী কাছেই দাঁড়িয়ে ছিলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকেও ডেকে বললেন, তুমিও আসো। মৌসুমী কাছে গেলে তাকেও বুকে জড়িয়ে ধরলেন জনদরদী এই নেত্রী। তারপর আমি তাদের বিরল মুহূর্তের এই ছবিটি ধারণ করলাম।’

প্রসঙ্গত, ‘ছুটির ঘণ্টা’ ও ‘অশিক্ষিত’-খ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা আজিজুর রহমান হৃদযন্ত্রের সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। বর্তমানে সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

আজিজুর রহমান পরিচালিত বেশ কিছু সিনেমায় অভিনয় করেছেন শাবনা। ২০০০ সালে শাবানা সপরিবারে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে। চলচ্চিত্রাঙ্গনের অন্যান্যদের সঙ্গে খুব একটা যোগাযোগ না রাখলেও গুণী এ নির্মাতার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল কিংবদন্তী এই নায়িকার। মাঝে-মধ্যে দেশে এসে কিছুদিন থাকার পর আবার চলে যান। সেই থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। দীর্ঘ ১০ বছর ধরে চলচ্চিত্রাঙ্গন থেকে নিজেকে দূরে রেখেছেন তিনি।

মানবকণ্ঠ/আরএস