প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলায় পুলিশ নিহত, আইএসের দায় স্বীকার

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের কেন্দ্রস্থলে বন্দুকধারীর গুলিতে এক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত ও অপর দুইজন আহত হয়েছেন। ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দু’দিন আগে সংঘটিত এ হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। আইএসের মুখপত্র আমাক নিউজ এজেন্সি দাবি করেছে, ওই হামলাকারী তাদের ‘যোদ্ধা’ এবং তার নাম আবু-ইউসুফ আল-বালজিকি। খবর বিবিসি ও এএফপির।
এএফপির খবরে বলা হয়েছে, ফরাসি পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে প্যারিসের চ্যাম্প এলিসিস এলাকায় এক বন্দুকধারী নির্বিচারে গুলি শুরু করে। এতে ঘটনাস্থলেই এক পুলিশ সদস্য মারা যান। আহত হন আরো দু’জন। হামলার পর ঘটনাস্থল ‘দ্য চ্যাম্পস এলিসি’ বন্ধ করে দেয় পুলিশ। ঘটনাস্থলের আকাশে হেলিকপ্টার চক্কর দেয়। সবাইকে সরে যেতে বলা হয়।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র পিয়েরে অঁরি ব্রান্ড জানান, রাত ৯টার দিকে একটি গাড়ি ওই রাস্তায় একটি পুলিশ বাসের পাশে আসে দাঁড়ায় এবং সেখান থেকে নেমে এসে এক ব্যক্তি স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র থেকে বাসে গুলি চালায়। একজন পুলিশ সদস্যকে হত্যার পর অন্যদের দিকে গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে পালানোর চেষ্টা করে ওই হামলাকারী। পরে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের গুলিতে তার মৃত্যু হয় বলে মুখপাত্র জানান।
এদিকে, হামলার খবর পেয়ে প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওঁলাদ জরুরি ভিত্তিতে তার প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন। পরে তিনি হামলার ঘটনাকে ‘কাপুরুষোচিত হত্যাকাণ্ড’ বলে অভিহিত বলেন, পুরো জাতি নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে আছে এবং নিহত পুলিশ সদস্যের প্রতি জাতীয়ভাবে শ্রদ্ধা জানানো হবে।
তিনি বলেছেন, এটি যে জঙ্গিদের কাজ, সে বিষয়ে তিনি নিশ্চিত।
ফরাসি প্রসিকিউটর ফ্রাঁসোয়া ময়াঁ বলেন, সন্দেহভাজন হামলাকারীকে চিহ্নিত করা হয়েছে। হামলার ঘটনায় তার সঙ্গে আর কেউ ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা।
২০১৫ সাল থেকে সন্ত্রাসী হামলায় ফ্রান্সে অন্তত ২৩৮ জন নিহত হয়েছে। আর বেশিরভাগ ক্ষেত্রে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস হামলার দায় স্বীকার করেছে। দেশটি বর্তমানে জরুরি অবস্থার মধ্যে আছে।

মানবকণ্ঠ/এসএস

Leave a Reply

Your email address will not be published.