পুরান ঢাকা হতে পারে বিশ্বের সেরা ঐতিহ্যের নগরী: র‌্যাব ডিজি

পুরান ঢাকা হতে পারে বিশ্বের সেরা ঐতিহ্যের নগরী: র‌্যাব ডিজি

পুলিশের এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেছেন, পুরান ঢাকা ঐতিহ্যের। এই এলাকা হতে পারে বিশ্বের সেরা ঐতিহ্যের নগরী। কিন্তু কেমিক্যালের কারণে এক সময় পুরান ঢাকা রূপ নিয়েছিল টাইম বোমায়। যে কারণে পর পর দু’টি বড় দুর্ঘটনা ঘটলো। সরকার চায় এই এলাকায় আর দাহ্য পদার্থের ব্যবসা না হোক। তাই টাস্কফোর্সের উদ্যোগে সরানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কিন্তু অভিযোগ পাচ্ছি, কেউ কেউ এসব নিজের বাসায়-আত্মীয়ের বাসায় রাখছেন। পুরান ঢাকাকে সেফ করতে গিয়ে দাহ্য পদার্থ ছড়িয়ে পুরো ঢাকাকে যেন টাইম বোমায় পরিণত না করি।

শনিবার রাজধানীর বকশীবাজার কারা কনভেনশন হলে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি। পুরান ঢাকার আবাসিক এলাকা হতে কেমিক্যাল, প্লাস্টিক ও অন্যান্য দাহ্য পদার্থের কারখানা ও গোডাউন অপসারণের লক্ষ্যে বিশেষ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে র‌্যাব-১০।

র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, আমরা আর গরীব দেশ নেই। আমাদের গরীবি আছে মনে। সেটা দূর করতে হবে। আমাদের এখন পার ইনকাম (জনপ্রতি আয়) দুই হাজার ডলার। ২০২১ সালের মধ্যে আমরা হবো মধ্যম আয়ের দেশ। আমাদের চ্যালেঞ্জ নেবার ক্ষমতা আছে। সেটা গ্রহণ করতে হবে।

র‌্যাব ডিজি বলেন, পুরান ঢাকায় মজুত রেখে ব্যবসা হয় এমন ৩৫টি আইটেমের কেমিক্যালকে শনাক্ত করা হয়েছে। যেগুলো দাহ্য পদার্থ হিসেবে সরানোর কথা বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের প্রতি আমাদের আস্থা রাখতে হবে।

মেয়াদোত্তীর্ণ কেমিক্যাল পণ্য আপনারা আমদানি কেন করবেন প্রশ্ন রেখে র‌্যাব ডিজি বলেন, আপনারার যারা ব্যবসায়ী তাদের জ্ঞান দেয়ার কাজ না। আমরা তো পেমেন্ট দিয়ে নিয়ে কিনি। তবে কেন মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য আমদানি করবো। আমরা যা যা যেভাবে চাইবো সেটা দিতে বাধ্য রফতানিকারকরা। ডাম্পিংয়ের দেশ আর বাংলাদেশ না। এসব বন্ধ করতে হবে। কারণ আমাদের কথা বলার ক্ষমতা আছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রথম বাজেট বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করেছিল ৭শ’ ৩৫ কোটি টাকা। এখন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার বাজেট ঘোষণা করেছেন ৪ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা। এটা আরও বাড়বে। সুতরাং আমাদের চিন্তার প্রসার আনতে হবে। আমরা সামনে ৩০তম অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ দেশ হবো।

তিনি আরো বলেন, যারা দাহ্য পদার্থ সরিয়ে নিয়েছেন তাদের প্রত্যেককে অভিনন্দন। আমরা কারো প্রতিপক্ষ না। আজকে দেশ এই জায়গায় এসেছে আপনাদের (ব্যবসায়ী) জন্য। আমরা প্রশাসন, পলিটিশিয়ান, পুলিশ আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সবাই কাজ করি আপনাদের জন্য।

র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক ও টাস্কফোর্স উপ-কমিটি-৪ এর আহ্বায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মো. কাইয়ুমুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন- টাস্কফোর্স সদরের প্রতিনিধি ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনেরর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান, ডিএমপির লালবাগ বিভাগের ডিসি মোহাম্মদ ইব্রাহিম খান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাত ও ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা।

মানবকণ্ঠ/এসএস