পরিচ্ছন্নতার বিশ্ব রেকর্ড বঙ্গবন্ধুর নামে উৎসর্গ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ঢাকার পরিচ্ছন্নতায় তৎপরতার স্বীকৃতিস্বরূপ নাম উঠেছে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে। এই স্বীকৃতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে উৎসর্গ করেছেন সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।
গতকাল মঙ্গলবার নগর ভবনসহ ব্যাংক ফ্লোর সেমিনার কক্ষে ‘ডিএসসিসির প্রতীকী পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস স্বীকৃতি অর্জন’বিষয়ক ডিএসসিসির আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি।
সাঈদ খোকন বলেন, পরিচ্ছন্নতা বিষয়ে এ রেকর্ড করাই আমাদের উদ্দেশ্য ছিল না। আমরা চেয়েছি, এমন কর্মসূচির মাধ্যেমে শহরবাসী পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সচেতন হবে। আর এই রেকর্ডের মাধ্যমে বিশ্ববাসী জেনেছে, এ দেশের মানুষ পরিচ্ছন্নতায় সচেতন জাতি। আমাদের এই অর্জন, সেই নেতার নামে উৎসর্গ করতে চাই, যে নেতা না থাকলে আমরা এই দেশ, এই স্বাধীনতা পেতাম না।
তিনি বলেন, রেকর্ড যেন শুধু রেকর্ড হিসেবে না থাকে, এ জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে। এই অর্জন এখনো সফল হয় নাই। এই সম্মান তখনই অর্থবহ-কার্যকর হবে যখন এই শহরবাসীকে পরিপূর্ণ একটি পরিচ্ছন্ন শহর উপহার দিতে পারব। তবে একজন মেয়রের পক্ষে শহর পরিচ্ছন্ন রাখা সম্ভব নয়। শহরের সব নাগরিককে মেয়র হতে হবে এবং নিজের চারপাশ পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। তাহলে বিশ্ববাসীর কাছে আমরা পরিচ্ছন্ন নগরের মানুষ হিসেবে সুপ্রতিষ্ঠিত হতে পারব।
সংবাদ সম্মেলনে গাজী গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম দস্তগীর গাজী এমপি বলেন, এই অর্জন কেবল ঢাকাবাসীর নয়, এই অর্জন গোটা বাঙালি জাতির।
তিনি বলেন, ঢাকা এ দেশের রাজধানী। আমরা যারা ঢাকার বাইরে আছি তারা বিভিন্ন কারণে ঢাকায় আসি।
এ শহরকে সুন্দর রাখা আমাদের সবার দায়িত্ব। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন যেভাবে গিনেজ বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে স্থান করে নিয়েছে, তার সঙ্গে থাকতে পেরে আমরা গর্বিত।
উল্লেখ্য, এ বছরের ১৩ এপ্রিল চৈত্র সংক্রান্তিতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এক প্রতীকী পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি আয়োজন করে। সর্বাধিক সংখ্যক মানুষ একই জায়গায় ঝাড়– দেয়ার এই রেকর্ডটি আগে ভারতের বদোধরা শহরের দখলে ছিল (৫,০৫৮ জন)। ওই রেকর্ড ভেঙে বর্তমানে ‘গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ডে’ বাংলাদেশ নতুন রেকর্ডের অধিকারী (৭,০২১ জন)।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহম্মাদ বিল্লাল, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডর মো. জাহিদ হোসেন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শেখ সালাউদ্দিন, সচিব শাহাবুদ্দিন খান, রেকিট বেনকিজারের মার্কেটিং ডিরেক্টর সৈয়দ তানজিম রেজওয়ান, জিটিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমান আশরাফ ফায়েজ প্রমুখ।