নির্বাচনে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত ইনশাল্লাহ: নাসিম

নির্বাচনে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত ইনশাল্লাহ: নাসিম

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, দেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সব শক্তি আজ ঐক্যবদ্ধ। এই শক্তি ঐক্যবদ্ধ থেকেই নির্বাচনে অংশ নেবে। নির্বাচনে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত ইনশাল্লাহ।

শনিবার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দলের যৌথ সভা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসন বণ্টন নিয়ে মহাজোটে কোনো টানাপড়েন নেই। ভালো-যোগ্য প্রার্থী পেলে মহাজোটের অন্য দলকে আসন ছাড়বে আওয়ামী লীগ।

১৪–দলীয় জোটের মুখপাত্র বলেন, ডিসেম্বর মাস এলেই কী কারণে যেন বিএনপি-জামায়াত জোট ভয় পায়। তাদের একাত্তরের সেই পরাজয়ের কথা মনে হয়, তাই ডিসেম্বর মাস এলে তারা আতঙ্কিত হয়। এ কারণে নির্বাচন কমিশন যখন তফসিল ঘোষণা করল, তারপরও ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনকে একাধিকবার নির্বাচনের তারিখ পেছানোর জন্য বলা হলো।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন,‘ডিসেম্বর মাস বিজয়ের মাস। ডিসেম্বর মাসে কোনো সময়ই বাঙালি, মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসী দল পরাজিত হয়নি। সেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করেছিলাম জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে। আওয়ামী লীগ সেই নেতৃত্ব দিয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি সেই নেতৃত্ব দিয়েছিল। সেই বিজয় থেকেই আমরা বিশ্বাস করি, বিজয়ের মাস এলে জাতি ঐক্যবদ্ধ হয় এবং ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করে অপশক্তির বিরুদ্ধে। সব বিজয় হয় এই ডিসেম্বর মাসে। ডিসেম্বরের নির্বাচনে একাত্তরের অপশক্তিকে পরাজিত করে আমরা বিজয় লাভ করব।

নয়াপল্টনে পুলিশের ওপর হামলার নিন্দা জানিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, কেন পুলিশকে আক্রমণ করা হলো? এবারও দেখলাম বাঁশের লাঠি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। সেখানে নারী-পুরুষ সবাই দাঁড়িয়ে আছে। আমরা বিস্মিত হলাম দেখে। তারা মনে হয় আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল। এই যে তাদের আচরণ, তাদের মনে হয় এখনো চরিত্র পরিবর্তন হয়নি। আমরা এখনো মনে করি তারা (বিএনপি) নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে, তারা নির্বাচনে অংশ নেবে। নির্বাচনের মাঠে আসেন, নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতা করুন। জনগণ রায় দেবে, সেই রায় আমরা মেনে নেব। আমরা বিশ্বাস করি, মুক্তিযুদ্ধের শক্তি যেভাবে ঐক্যবদ্ধ আছে, আমাদের বিজয় নিশ্চিত।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, জাতীয় পার্টির (জেপি) মহাসচিব শেখ শহিদুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, বাংলাদেশ জাসদের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, তরীকত ফেডারেশনের সভাপতি নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া প্রমুখ।

মানবকণ্ঠ/এসএস