ইসিতে বিএনপির নালিশ

নির্বাচনের মাঠে থাকতেই দিচ্ছে না সরকার

নির্বাচনের মাঠে থাকতেই দিচ্ছে না সরকার

সরকার তাদের নির্বাচনের মাঠে থাকতেই দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। দলটি আরেকটি একতরফা নির্বাচন করতেই এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে চাইছে অভিযোগ কওে দলটির পক্ষ থেকে সময় না নিয়ে এখনই সেনা মোতায়েনের দাবি জানানো হয়েছে।

রাজধানীর নির্বাচন ভবনে রোববার বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল নির্বাচন কমিশনারদের সাক্ষাৎ না পেয়ে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সঙ্গে বৈঠক করে এসব অভিযোগ করেন। তারা ঐক্যফ্রন্টের নেতা-কর্মীদের ওপর পুলিশের গুলি, গ্রেফতার ও আওয়ামী লীগের আক্রমণ বন্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবর একটি চিঠি দেন। প্রতিনিধি দলে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা বিজন কান্তি সরকার, আতাউর রহমান ঢালি ছিলেন।

বৈঠক শেষে সেলিমা রহমান সাংবাদিকদের বলেন, শনিবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দীন খোকনের প্রচারে হামলা হয়েছে। অথচ উল্টো বিএনপির নেতা-কর্মীদেরই গ্রেফতার করা হচ্ছে। যেন পুলিশই এখন বিএনপির প্রতিপক্ষ। ঢাকায় বিএনপির কেউ প্রচারে নামতে পারছেন না। সিইসি বলেছেন, ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ আছে। তারা জানতে চান, লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের সংজ্ঞা কী? একপক্ষ সব সুবিধা নিয়ে প্রচার চালাচ্ছে আর অন্যপক্ষ পোস্টারও লাগাতে পারছে না।

সেলিমা রহমান বলেন, বিএনপির ওপর আক্রমণ হলেও তারা প্রতিরোধ গড়ে তুলছে না। আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিএনপি নির্বাচনে আছে। এ নির্বাচন অস্থিত্বের লড়াই। বিএনপি কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু কোনো সহিংসতা হোক, সেটা তারা চান না। পুলিশ নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মানছে না জানিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে এখনই সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানান তিনি।

সেলিমা রহমান অভিযোগ করেন, নির্বাচনের আর মাত্র ১৩ দিন থাকলেও ঢাকায় এখনো তাদের কোনো প্রার্থী প্রচারে নামতে পারেননি। পুলিশ যেন প্রতিপক্ষ, তারা মাঠে থাকতে দিচ্ছে না। ২০১৪ সালের মতো আবারও একতরফা নির্বাচন করতে চাচ্ছে সরকার।

সোনাইমুড়ির ওসিকে প্রত্যাহারের দাবি : এদিকে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকনের ওপর হামলার ঘটনায় নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি থানার ওসি আবদুল মজিদকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছে তার পরিবার। খোকনের ছেলে সাকিব মাহবুব প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার কাছে এই দাবি জানান। লিখিত আবেদনে তিনি বলেন, ওসির গুলিতে বিএনপি প্রার্থীসহ ৪০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এজন্য ওসিকে অবিলম্বে প্রত্যাহার ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে আইনি ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হচ্ছে।

মানবকণ্ঠ/এসএস