নির্বাচনকালীন সরকার গঠন হতে পারে শুক্রবার: মুহিত

আগামীকাল শুক্রবার নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হওয়ার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, আগামীকাল শুক্রবার নির্বাচনকালীন সরকার গঠন হতে পারে। পদত্যাগ করা চার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীর জায়গায় নতুন কেউ মন্ত্রিত্ব পাবে না। তাদের পদত্যাগপত্র এখনও গ্রহণ হয়নি।

চার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীর জায়গায় নতুন কাউকে আনা হবে কী না জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, না, নতুন কাউকে আনা হবে না। এ চার মন্ত্রণালয় বর্তমান মন্ত্রীদের বাড়তি দায়িত্ব হিসেবে দেয়া হবে।

সরকারি দলের নীতিনির্ধারণী সূত্র বলছে, নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভার আকার এবং এতে কারা থাকছেন, এ–সংক্রান্ত প্রাথমিক পরিকল্পনা করা হয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই মন্ত্রিসভার সদস্য ২৫-এ রাখার একটা পরিকল্পনা আছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে যে নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা হয়েছিল, তাতে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী মিলিয়ে ছিল ২৯ সদস্যের। এর বাইরে ছিলেন ১০ জন উপদেষ্টা। সেবার মন্ত্রিসভার সব সদস্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন। পুরোনো কয়েকজনকে রেখে এবং নতুন যোগ করে নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়।

নির্বাচনকালীন সরকার সম্পর্কে সংবিধানে স্পষ্ট করে কিছু বলা নেই। আর সংবিধানে মন্ত্রিসভা গঠনের একক ক্ষমতা দেয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে। এ জন্য নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা, এর আকার ও কাকে নেয়া হবে আর কাকে বর্তমান মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেয়া হবে, তা একান্তই প্রধানমন্ত্রীর ওপর নির্ভর করছে। ২০১৩ সালের শেষের দিকে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের আগে তৎকালীন বিরোধী দল বিএনপিকে প্রয়োজনে কয়েকটি মন্ত্রণালয় ছেড়ে দেয়ার কথা বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগের নেতারা। এবার সরকারি জোটে এমন মনোভাব নেই।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ

Leave a Reply

Your email address will not be published.