নিপুন রায় গ্রেফতার, ছাড়া পেলেন বেবী নাজনীন

পুলিশের ওপর হামলা ও গাড়ি পোড়ানোর মামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে আটকের পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে বিএনপির আন্তর্জাতিকবিষয়ক সহসম্পাদক সংগীতশিল্পী বেবী নাজনীনকে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর নাইটিংগেল মোড় থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ পূর্ব বিভাগের উপ-কমিশনার খন্দকার নুরুন্নবী গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে বেবী নাজনীন ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায়কে আটক করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বেবী নাজনীনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। আর নিপুন রায়কে তিনটি মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, একটি মামলার এজাহারভুক্ত ১২ নম্বর আসামি নিপুণ রায় চৌধুরী। তিনি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ ও বিএনপির সাবেক প্রতিমন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরীর মেয়ে। বুধবার রাতে পল্টন থানায় দায়ের করা তিনটি মামলা বৃহস্পতিবার ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়।

উল্লেখ্য, বুধবার (১৪ নভেম্বর) নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পুলিশ ও নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশের ২১ জন, ২ জন আনসার ও বিএনপির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এছাড়া কার্যালয়ের পাশে থাকা পুলিশের দুটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা। এ ঘটনায় পল্টন থানায় তিনটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। তিন মামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, মির্জা আব্বাস ও জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, মির্জা আব্বাসের স্ত্রী ও জাতীয় মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আকতারুজ্জামান রঞ্জন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কফিল উদ্দিন, দলটির মিডিয়া উইংয়ের দায়িত্বে থাকা সামসুদ্দিন দিদার, নির্বাহী কমিটির সদস্য অমিনুল ইসলাম, হাবিবুর রশিদ হাবিব, যাত্রাবাড়ী থানার সভাপতি নবীউল্লাহ নবী, যুবদলের রফিকুল ইসলাম মজনু, ছাত্রদলের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি জহির উদ্দিন তুহিন ও আরিফা সুলতানা রুমাসহ ৪৮৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আসামিদের মধ্যে রাজধানীর বিভিন্ন ওয়ার্ডের নেতাকর্মী ছাড়াও কক্সবাজার, পিরোজপুর, নেত্রকোণা, চাঁদপুর, কিশোরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, গাইবান্ধা, বগুড়া, ফেনী, যশোর, বাগেরহাট, সিরাজগঞ্জ, খুলনা, সিলেটসহ বিভিন্ন জেলার নেতাকর্মীরা রয়েছেন। গাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, রাস্তা অবরোধ, পুলিশকে মারধর, সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে এসব মামলা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ