ধুনটে যুবলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, প্রেসক্লাবে হামলা

বগুড়ার ধুনটে দলিল লেখক সমিতির কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময় যুবলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা ধুনট মডেল প্রেসক্লাবে হামলা চালিয়ে দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক ও দৈনিক সমকালের ধুনট প্রতিনিধি সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন টিক্কাকে মারধর করেছে। শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় এ ঘটনাটি ঘটে।

জানা গেছে, গত ১৬ আগস্ট ধুনট উপজেলা দলিল লেখক সমিতির এক জরুরী সভায় সর্বসম্মতিক্রমে যুবলীগ নেতা কাউন্সিলর বাবুল আকতার বাবু সভাপতি ও যুবলীগ নেতা ফজলুল হক সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক সাইদুল ইসলাম ও নবনির্বাচিত সভাপতি বাবুল আকতার ও সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হকের সাথে বিরোধের সৃষ্টি হয়। শনিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় ওই কমিটির নেতৃবৃন্দ সংবাদ সম্মেলন করতে ধুনট মডেল প্রেসক্লাবে আসে। এসময় সাইদুল ইসলাম ও তার কর্মী মিঠু মল্লিক সহ ৪-৫জন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে প্রেসক্লাবে ঢুকে ফজলুল হক ও তার কর্মী স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা শহিদুল মন্ডলকে মারধর করতে থাকে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে পুলিশের সামনেই তারা সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন টিক্কাকে মারধর করে।

সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন টিক্কা জানান, এলাকার প্রভাবশালী একজন জনপ্রতিনিধির ইন্ধনে সন্ত্রাসীরা প্রেসক্লাবে হামলা চালিয়ে তাকে মারধর করেছে।

ধুনট মডেল প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক ইমরান হোসেন ইমন বলেন, সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন টিক্কা ও আমি প্রেসক্লাবে বসে পেশাগত দায়িত্ব পালন করছিলাম। এ সময় দেশীয় অস্ত্র নিয়ে প্রেসক্লাবে ঢুকে সাইদুল ইসলাম ও মিঠু মল্লিকসহ ৪-৫ অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক ও শহিদুল মন্ডলকে মারধর করতে থাকে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলে পুলিশের সামনেই সাইদুল ও মিঠু মল্লিকসহ তার সহযোগীরা অতর্কিতভাবে সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন টিক্কাকে মারধর করে।

এদিকে প্রেসক্লাবে ঢুকে হামলার ঘটনায় ধুনট উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সাংবাদিকবৃন্দ অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন।

ধুনট থানার এসআই শফিকুল ইসলাম ও এসআই সুলতান মাহমুদ জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিষয়টি তদন্ত করা হয়েছে। এবিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মানবকণ্ঠ/এসএ