ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে ২ শিশুকে হত্যা : পুলিশ

রাজধানীর ডেমরায় দুই শিশু নুসরাত জাহান ও ফারিয়া আক্তার দোলাকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে হত্যা করেছেন দুই যুবক। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে পুলিশ বলছে, লিপস্টিক দেয়ার কথা বলে শিশু দুটিকে ফ্ল্যাটে নিয়ে গোলাম মোস্তফা ও আজিজুল বাওয়ানী ধর্ষণের চেষ্টা করে। শিশুদের চিৎকারের শব্দ চাপা দিতে সাউন্ড বক্সে জোরে গান ছেড়ে দেন। ধর্ষণ করতে না পেরে শ্বাসরোধে তাদের হত্যা করেন তারা।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে গ্রেফতার করা যুবকদের দেয়া তথ্যের কথা উল্লেখ করে এ কথা জানান পুলিশের ওয়ারী বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত দুজন বলেছে, ধর্ষণ করার উদ্দেশ্যে তারা নুসরাত আর দোলাকে সোমবার দুপুরে বাসায় নিয়ে যায়। ঘটনার সময় মোস্তফার স্ত্রী গার্মেন্ট কর্মী আঁখি ছিলেন কারখানায়। মোস্তফা ও আজিজুল তখন বাড়ির বাইরে খেলতে থাকা নুসরাত আর দোলাকে লিপস্টিক কিনে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বাসায় নিয়ে যায়। পরে দুজন ইয়াবা সেবন করে জোরে গান বাজিয়ে মেয়ে দুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। কিন্তু তাতে ব্যার্থ হয়ে গলায় গামছা পেঁচিয়ে তাদের হত্যা করা হয় বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছে। হত্যার পর দুই শিশুর লাশ খাটের নিচে রেখে দেয় মোস্তফা ও আজিজুল। পরে আজিজুল ওই বাসা থেকে বেরিয়ে যান, মোস্তফা তখনও ছিলেন। সন্ধ্যায় আঁখি বাসায় ফিরে স্বামীর ‘অস্বাভাবিক আচরণ’ দেখে সন্দিহান হয়ে ওঠেন। আঁখি প্রতিবেশীর বাসায় গেলে ওই ফাঁকে মোস্তফা বাসা থেকে বেরিয়ে যান। পরে এলাকাবাসীর সহায়তায় পুলিশ ওই বাসার খাটের নিচ থেকে মেয়ে দুটির লাশ থেকে উদ্ধার করে। পরে মঙ্গলবার বিকেলে গোলাম মোস্তফাকে যাত্রাবাড়ীর ভাঙ্গা প্রেস এলাকা থেকে প্রথমে গ্রেফতার করে ডেমরা থানা-পুলিশ। মোস্তফার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে আজিজুলকে ডেমরার কাউন্সিলের মোল্লা ব্রিজ এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শিশু নুসরাতের বাবা পলাশ হাওলাদার বাদী হয়ে গোলাম মোস্তফা ও তার ভাই আজিজুলকে আসামি করে ডেমরা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মানব্কণ্ঠ/এফএইচ