দেশে আরো সমুদ্র বন্দর নির্মাণ হবে: নৌ প্রতিমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আর নদী দখল নয়, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক চালিকা শক্তি সচল রাখতে নৌ-পথকে সচল রাখতে হবে। উন্নয়নের রাজনীতি করতে হবে। শুধু তৃতীয় সমুদ্রবন্দর নয়, দেশে আরো সমুদ্র বন্দর নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হবে।

শুক্রবার দুপুর ১২টায় দেশের তৃতীয় সমুদ্র বন্দর পায়রা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সঙ্গে সঙ্গে দেশের নদীগুলোকেও হত্যা করা হয়েছিলো, আর ক্ষমতায় টিকে থাকতে একটি মহল দখল শুরু করে। যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী পরিবর্তন করেছেন।

তিনি বলেন, ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ডেল্টা প্ল্যান ঘোষণা করেছেন, সেটি বাস্তবায়নের জন্য মূল উৎস হচ্ছে নদী কেন্দ্রিক বাণিজ্য। সে ক্ষেত্রে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিশাল ভূমিকা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে লক্ষ্যে কাজ করছেন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাণিজ্য ক্ষেত্রে এশিয়া, ইউরোপসহ সমগ্র বিশ্ব একটি পরিবার হয়ে কাজ করছে। সে ক্ষেত্রে আমাদের উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক চালিকা শক্তি সচল রাখতে একমাত্র নৌ-পথকেই কাজে লাগাতে হবে। আর পায়রা বন্দরের সুফল দেশের সব অঞ্চলের মানুষও ভোগ করবে। এদিকে বন্দরের উন্নয়ন কাজে সন্তোষ প্রকাশ করে তিনি বলেন স্বাধীনতার ৫০ বছর পায়রা বন্দরকে কেন্দ্র করেই উদযাপন করা হবে।

পায়রা বন্দর পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন-পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া- রাঙ্গাবালী) আসনের এমপি অধ্যক্ষ মো. মহিবুর রহমান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাড. মো. আফজাল হোসেন, পটুয়াখালী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো.খলিলুর রহমান মোহন মিয়া, পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমডোর মো. জাহাঙ্গীর আলম, কলাপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মোতালেব তালুকদার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তানভীর রহমান।

এছাড়াও পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের পুলিশ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। পরে বিকাল পাঁচটায় কলাপাড়া শেখ কামাল অডিটরিয়মে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

মানবকণ্ঠ/এএম