দলের প্রার্থী না থাকায় নৌকার পক্ষে বিএনপি নেতাদের প্রচারণা!

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের উপ-নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নেয়ার ফলে নির্বাচনী উৎসব থেকে বঞ্চিত রয়েছেন দলটির নেতারা। কেন্দ্রীয় নির্দেশ পালন করলেও নির্বাচনী প্রচারণার লোভ সামলোতে পারছে না বিএনপি স্থানীয় নেতারা। গত কয়েকদিন রাজধানীর একাধিক ওয়ার্ডে ঘুরে এ রকম তথ্য পাওয়া গেছে। এর মধ্যে কয়েকটি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের পক্ষে প্রকাশ্যে প্রচারণা করতে দেখা গেছে বিএনপির দায়িত্বশীলদের। নেতাদের এমন প্রচারে দলের নেতাকর্মীদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

রাজধানীর উত্তরা বিএনপির দুই থানা সভাপতি নৌকার ব্যাজ লাগিয়ে প্রচারণায় নেমেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তুরাগ থানা বিএনপির সভাপতি আমান উল্লাহ আমান স্থানীয় আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী নাসির উদ্দিন মেম্বার ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলামের নৌকার প্রচারণায় সরাসরি অংশগ্রহণ করেছেন বলে একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন।

তুরাগ থানা বিএনপির একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, কাউন্সিলর প্রার্থীর নাসির মেম্বারের গুড্ডি মার্কা ও আতিকুল ইসলামের নৌকা মার্কার পক্ষে প্রকাশ্যে মিটিং মিছিলে অংশ নিয়েছেন আমান। এ ঘটনায় তুরাগ থানা বিএনপির অধিকাংশ নেতাকর্মীর মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

এ ব্যাপারে তুরাগ থানা বিএনপির সভাপতি আমান বলেন, আমি প্রকাশ্যেই নৌকা এবং নাসির মেম্বার এর পক্ষে কাজ করব। এতে কে কি বলল তা আমার দেখার বিষয় না। প্রয়োজনে হলে আওয়ামী লীগে যোগ দিব। আমি কারো বুদ্ধিতে চলি না।

অপরদিকে উত্তরখান থানা বিএনপির সভাপতি আহসান উল্লাহ স্থানীয় ৪৪ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের প্রর্থী শফীর পক্ষে প্রচাারণায় নেমেছেন ও নৌকা মার্কার ব্যাচ লাগিয়ে। একইভাবে স্থানীয় আওয়ামী লীগ অফিসে প্রকাশ্যে মিটিং করেছেন। যার স্থিরচিত্র স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীদের হাতে হাতে রয়েছে। এ ব্যাপারে আহসানের বক্তব্য জানতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এ দুটি ঘটনায় স্থানীয় বিএনপির অধিকাংশ নেতা প্রতিবেদকের কাছে ক্ষোভ জানিয়েছেন। তারা বলেন, সভাপতি হয়ে এমন কাজ তারা করতে পারেন না।

উল্লেখ্য,এ দুজনকে থানার সভাপতি বানাতে নগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুম ও স্থানীয় যুবদল নেতা এস এম জাহাঙ্গীর ব্যাপক তোড়জোড় করেছিলেন। ত্যাগী ও যোগ্য নেতাদের বাদ দিয়ে তাদের দুজনকে সভাপতি করায় গত দুই বছর থেকে স্থানীয় নেতাকর্মীরা অনাস্থা জানিয়ে আসছে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ